ঢাকায় বার্নিকাটের গাড়ি বহরে হামলার বিচার চেয়েছে আমেরিকা

33
শেয়ার

বাংলাদেশে নিযুক্ত আমেরিকার রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটের গাড়ি বহরে হামলার ঘটনায় বাংলাদেশ সরকারের কাছে বিচার চেয়েছে আমেরিকা। পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে পাঠানো পত্রে এমন অনুরোধ করেছে ঢাকাস্থ আমেরিকান দূতাবাস।

শনিবার রাত ১১টায় ‘সুশাসনের জন্য নাগরিক’ এর সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের ঢাকার মোহাম্মদপুরের বাসায় নৈশভোজ শেষে ফেরার পথে রাষ্ট্রদূতের গাড়ি বহরে একদল যুবক ইট পাটকেল ও লাঠিসোঠা নিয়ে হামলা করে।

একই সময়ে বদিউল আলম মজুমদারের বাসায়ও হামলা করা হয়। হামলার সময় বাসার দরজা জানালার কাচ ভেঙে ফেলে ঐ যুবকেরা।
বদিউল আলম মজুমদার এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ করেছেন।

থানা অভিযোগটি জিডি হিসেবে গ্রহণ করেছে। পুলিশ বলছে অভিযোগ প্রমাণিত হলে জিডিটি মামলায় পরিণত হবে।

আমেরিকান দূতাবাসের পাঠানো পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, হামলার সময় দুই ব্যক্তি চিৎকার করে বলেছিল, ‘বদিউল আলম সরকারবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত।’বার্নিকাটের নিরাপত্তা সদস্য ঐ দুই ব্যক্তিকে সনাক্ত করেছেন।

রাষ্ট্রদূতের দুজন নিরাপত্তা সদস্য হামলাকারীদের ঘুষিতে আহত হয়েছেন। এছাড়া গাড়ি বহরের দুটি গাড়িতে লাঠি দিয়ে আঘাত করা হয়।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে সোমবার রাষ্ট্রদূত বার্নিকাট বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে তাঁর বাসায় সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। এ সময় অন্যদের মধ্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় শিক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়ক ও বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের বিচার দাবিতে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে বিবৃতি দিয়েছে ঢাকার মার্কিন দূতাবাস।

রোববার ফেসবুকে মার্কিন দূতাবাসের অফিসিয়াল পেজে বিবৃতি দিয়ে বলা হয়, নিরাপদ সড়কের দাবিতে দেশব্যাপী চলমান ছাত্র আন্দোলনে সহিংস হামলা কোনোভাবেই সমর্থন করা যায় না।

গত সপ্তাহ থেকে সড়কে উন্নত যানবাহন ও নিরাপত্তার দাবিতে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণভাবে যে আন্দোলন করছে তা মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, কিন্তু কাণ্ডজ্ঞানহীনভাবে সম্পত্তি বিনষ্ট করা, বিশেষ করে বাস ও অন্যান্য যানবাহন ধ্বংসের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের ওই কর্মকাণ্ডে আমরা গ্রহণযোগ্য মনে করি না।

তবে শান্তিপূর্ণভাবে নিজেদের গণতান্ত্রিক অধিকার চর্চা করতে থাকা হাজার হাজার তরুণের ওপর নৃশংস হামলা ও হিংস্রতাকে সমর্থন করা যায় না।

মন্তব্য করুন

comments