চট্টগ্রামে টানা বৃষ্টিতে জলজট, দুর্ভোগে নগরবাসী

199
শেয়ার

বন্দর নগরী চট্টগ্রামে গত শুক্রবার মধ্যরাত থেকে রোববার দুপুর পর্যন্ত টানা বৃষ্টিতে আবারও তলিয়ে গেছে নিম্নাঞ্চল। সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে নগরীর নিম্নাঞ্চলে এখন হাঁটুপানি। ফলে সকাল থেকেই দুর্ভোগে পড়েন হাজার হাজার মানুষ।

জলাবদ্ধতায় নগরীর প্রধান সড়কসহ শাখা সড়কগুলো ডুবে যাওয়ায় পথে পথে যানবাহন অচল হয়ে পড়ে।এছাড়াও ওয়াসা, সিডিএ ও সিটি কর্পোরেশনের সমন্বয়হীন খোঁড়াখুড়িতে নগরী ভরে গেছে খানাখন্দে। এতে জলজটের সাথে সৃষ্ট হয় তীব্র যানজটও। বৃষ্টির পানি ঢুকে পড়ে বাসাবাড়ি, দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে।রোববার দুপুর দেড়টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত ভারী বর্ষণে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়।

মহানগরীর আগ্রাবাদ এক্সেস রোড, সিডিএ আবাসিক, আগ্রাবাদ হোটেলের সামনে, কাতালগঞ্জ, চকবাজার, বাকলিয়াসহ নগরের নিম্নাঞ্চলে জলজটের সৃষ্টি হয় এ সময়। বিকেলে জলজট সৃষ্টি হওয়া সড়কগুলোতে হাঁটুপানি মাড়িয়ে চলাচল করতে দেখা যায় প্রাইভেট কার, সিএনজি অটোরিকশা, মোটরসাইকেলসহ যানবাহনগুলোকে।কয়েকটি সিএনজি অটোরিকশা বিকল হয়ে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

শুক্রবার রাত থেকে রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত প্রায় ১৭৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অফিস।

আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে এ বৃষ্টিপাত আরও দু-একদিন থাকতে পারে।

এদিকে আকস্মিক বৃষ্টিতে এ জলজট সৃষ্টি হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। খুব শিগগিরই জমে থাকা জল নিষ্কাষণ হবে বলেও জানিয়েছেন তারা। তবে সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, অকেঁজো পানি নিষ্কাষণ ব্যবস্থার কারণে নগরীর অধিকাংশ এবং গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নগরীর চকবাজার, বাকলিয়া ডিসি রোড, নাসিরাবাদ, ষোলশহর দুই নম্বর গেট, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, চান্দগাঁও, কাতালগঞ্জ, বাকলিয়া, হেমসেন লেন, আগ্রাবাদ, হালিশহর, জামালখান, সিডিএ আবাসিক এলাকা, চান্দগাঁও আবাসিক এলাকাসহ নগরীর বিভিন্ন নিচু এলাকা হাঁটু পানিতে ডুবে যায়। ফলে এসব এলাকার অনেক বাসাবাড়ি, দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বৃষ্টির পানি প্রবেশ করে। নগরীর প্রবর্তক, বহদ্দারহাট, মুরাদপুর, ষোলশহর দুই নম্বর গেট, জিইসি মোড়, আগ্রাবাদ, কাপাসগোলা, চকবাজার, ডিসি রোড ও বাকলিয়া এলাকায় রাস্তাঘাটে পানিতে আটকা পড়ে শত শত যানবাহন। এতে যানবাহনে থাকা যাত্রীদের দুর্ভোগের অন্ত ছিল না। লেগে থাকে যানজটও। বিশেষ করে সিএনজিচালিত অটোরিকশাগুলোর ইঞ্জিনে পানি ঢুকে অচল হয়ে পড়ে। বহদ্দারহাট মোড়ে বহদ্দারহাট কাঁচাবাজারে পানি জমে যাওয়ায় রাস্তা সংলগ্ন ফুটপাতে শাক-সবজি ও মাছ বিক্রি করতে দেখা যায়। ডুবে গেছে চকবাজার কাঁচাবাজারও।

মন্তব্য করুন

comments