১৫০ বছরের ঐতিহ্যবাহী চন্দনপুরা তাজ মসজিদ

স্থাপত্যশৈলীতে নির্মিত চট্টগ্রামের ঐতিহ্য অতি প্রাচীন চন্দনপুরা মসজিদ। নগরীর চকবাজার ওয়ার্ডের সিরাজ-উদ-দৌলা সড়কে এটি অবস্থিত। মসজিদের চারদিকে যেন রঙের মেলা। হরেক রঙ ব্যবহার করা হয়েছে স্থাপনার প্রতিটি অংশে। লতা-পাতার নকশা আর নানান কারুকাজে সৌন্দর্য ফুটিয়ে তোলা হয়েছে সুনিপুণ হাতে। অনেক দূর থেকে দেখা যায় মসজিদটির বাহ্যিক সৌন্দর্য।

মসজিদটি নির্মিত হয় নবাব শায়েস্তা খাঁর আমলে। ঐতিহাসিক সূত্রগুলো বলছে, ১৬৬৬ সালে নবাব শায়েস্তা খাঁর সেনাদল আরাকান মগরাজাদের কবল থেকে চট্টগ্রামকে স্বাধীন করার পর চট্টগ্রাম অঞ্চলে অনেক মসজিদ নির্মাণ করা হয়। শায়েস্তা খাঁর শাহি ফরমানে এসব মসজিদ নির্মিত হয়। চন্দনপুরা হামিদিয়া তাজ মসজিদ সেগুলোর একটি।

সিরাজ-উদ-দৌলা সড়কের পশ্চিম পাশে মোগল স্থাপনা শিল্পের আদলে ১৮৭০ সালে মাটি ও চুন সুরকির দেয়াল আর টিনের ছাদের মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেন আব্দুল হামিদ মাস্টার। তখনও মাটির দেয়ালে কারুকাজে ভরপুর ছিল। তার বংশধর ব্রিটিশ সরকারের ঠিকাদার আবু সৈয়দ দোভাষ ১৯৪৬ সালে এই মসজিদের সংস্কার কাজে হাত দেন। মসজিদের কারিগর ও নির্মাণ সামগ্রী ভারত থেকে আনা হয়। এতে সেই সময়ে প্রায় পাঁচ লাখ টাকারও অধিক খরচ হয়। চারপাশের দেয়ালগুলো ভেন্টিলেশন সিস্টেমের। দেয়ালের ফাঁক গলে ঢুকছে আলো। আলোর ঝরণাধারায় ভেতরটা করছে ঝলমল, আছে বাতাসের কোমল পরশ।

মোগল আমলে নির্মিত তাজ মসজিদের রয়েছে ১৫টি গম্বুজ। এর মধ্যে বড় গম্বুজটি নির্মাণে তৎকালীন সময়ের প্রায় চার লাখ টাকার ১৫ মণ রুপা ও পিতলের প্রয়োজন হয়, যা সংগ্রহ করা হয় ভারতের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে। গম্বুজের চারপাশে লেখা আছে রাসুল (সা.)-এর পরিবার ও দুনিয়ায় জান্নাতের সুসংবাদ পাওয়া ১০ সাহাবির নাম। মসজিদটির সুউচ্চ মিনার থেকে শুরু করে দেয়াল, উঁচু পিলার, দরজা-জানালা সব কিছুতেই রয়েছে নান্দনিক কারুকাজ।

চন্দনপুরা তাজ মসজিদ

আবু সৈয়দ দোভাষ একই নকশায় নগরীর কোতোয়ালীর মোড় এলাকায় শ্বশুর বাড়িতেও ১টি মসজিদ তৈরি করেছিলেন। তবে সেটি এই মসজিদ থেকে আকারে ছোট ছিল। অনেকের কাছে এ মসজিদ চন্দনপুরা বড় মসজিদ বা তাজ মসজিদ নামেও পরিচিত। এখন মসজিদটির বয়স ১৫০ বছর। চট্টগ্রামের পর্যটন শিল্পের পরিচয় তুলে ধরতে মসজিদটির ছবি ব্যবহার করা হয় দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রকাশনায়। প্রকাশনাগুলোতে এ মসজিদের ছবি থাকায় বিদেশ থেকে পর্যটকরাও আসেন এখানে। আবু সৈয়দ দোভাষ সেই সময়ে কলকাতা থেকে কারিগর ও দিল্লীসহ বিভিন্ন স্থান থেকে উপকরণ এনে প্রায় ১৩ শতক জায়গার ওপর দোতলা মসজিদটি গড়ে তুলেন। মসজিদে রয়েছে ছোট-বড় ১৫টি গম্বুজ। প্রতিটি গম্বুজে যাওয়ার জন্য আছে সিঁড়ি। গম্বুজ ও সিঁড়িতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে মোগল স্থাপত্য নিদর্শনের প্রতিচ্ছবি। গম্বুজের চারপাশে রয়েছে জান্নাতের সুসংবাদ পাওয়া ১০ সাহাবীর নাম। যখন মাইকের ব্যবহার ছিল না, তখন ৪তলা সমান উঁচু মিনারে উঠে আজান দেয়া হতো। এরকম ২টি মিনার এখনও আছে।

মসজিদ কমিটির সদস্য মো. জহুরুল হক বলেন, তার দাদা আবু সৈয়দ দোভাষ ১৯৫০ সালে এ মসজিদ পুনর্নির্মাণ কাজ শেষ করেন। এখন প্রতি ৫ বছর পর একবার রঙ করা হয়। একবার রঙ করার কাজ শেষ করতে প্রায় ৩ থেকে ৪ মাস সময় লাগে। এ মসজিদে বড় গম্বুজটি ছিল প্রায় ১৩ মণ রুপা ও পিতলের তৈরি। এ সু² কাজের কারিগরের অভাবে সংস্কার কাজও সঠিকভাবে করা যায় না বলেও তিনি জানান। বৈরি আবহাওয়ায় এসব জিনিস যেমন নষ্ট হয়েছে তেমনি সংস্কারের সময়ও অনেক কিছু হারিয়ে গেছে। এখন আমরা বড় গম্বুজে সবুজ, গোলাপি ও হলুদ রঙ করে দিই। তিনি আরও জানান, বর্তমানে মসজিদে ১ জন ইমাম, ১ জন হাফেজ ও ২ জন মুয়াজ্জিন রয়েছেন।

সম্প্রতি এশিয়া ট্রাভেল ট্যুরস নামের একটি জনপ্রিয় ম্যাগাজিন তাদের প্রচ্ছদে তাজ মসজিদের ছবি ব্যবহার করেছে। পাশাপাশি এমনকি চট্টগ্রামের আইকনিক চিত্র ও ডকুমেন্টারিগুলোতেও মসজিদটির বিপুল ব্যবহার রয়েছে। এ ছাড়া মসজিদটিতে রয়েছে দুর্লভ ইসলামী নিদর্শনাবলির সমৃদ্ধ সংগ্রহশালা।

মন্তব্য করুন

comments

আগের সংবাদইচ্ছা মানব উন্নয়ন সংস্থার “১টাকায় শীতবস্ত্র”
পরের সংবাদভোজন রসিক মানুষের জন্য চট্টগ্রামের সেরা খাবারের খোঁজ