প্রথমবারের মতো বেসরকারি রকেটে দুই নভোচারীর মহাকাশ যাত্রা

মহাকাশ যাত্রায় নতুন অধ্যায়ের শুরু হলো যুক্তরাষ্ট্রে। প্রথমবারের মতো সফলভাবে মহাশূন্য নভোচারী পাঠিয়েছে, বেসরকারি কোনো সংস্থা।

শনিবার ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক বেসরকারি রকেট নির্মাতা কোম্পানি স্পেসএক্সের মহাকাশযানে করে ওই দুই অভিজ্ঞ নভোচারী মহাশূন্যে যাত্রা করেন, এর মাধ্যমে মহাশূন্য ভ্রমণে এক নতুন যুগ সূচিত হল।

দুই নভোচারী ডগ হার্লি এবং বব বেনকেন শুধু নতুন একটি ক্যাপসুল ব্যবস্থাই পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করছেন না বরং তারা নাসার জন্য নতুন একটি ব্যবসায়িক মডেলের সূচনা করতে যাচ্ছেন।

আশা করা হচ্ছে যে, স্পেসএক্স কোম্পানিটি বাজার প্রসারিত করবে। এরিমধ্যে এরোস্পেস জায়ান্ট বোয়িং এ কাজটির জন্য নাসার সাথে চুক্তি করেছে।

প্রায় এক দশকের অপেক্ষার অবসান। নয় বছর আগে মহাকাশে নাসা নিজেদের শাটল পাঠানো বন্ধ করার পর প্রথমবারের মতো যুক্তরাষ্ট্রের মাটি থেকে মার্কিন নভোচারীরা পৃথিবীর কক্ষপথে গেলেন।

স্পেসএক্সের নতুন এই সক্ষমতা আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে কর্মী পরিবহনে রাশিয়ার রকেট এবং ক্যাপসুলের উপর নাসার নির্ভরতা কমাবে।

এই বিষয়টিকেই গ্রহণ করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, যিনি উৎক্ষেপণ দেখতে ফ্লোরিডায় গিয়েছিলেন।

ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টারের আশপাশের পরিবেশ পুরোপুরি অনুকূলে না থাকায় আবহাওয়াবিদরা প্রথমে মহাকাশযানটি উৎক্ষেপণে ৫০ শতাংশ সম্ভাবনা দেখেছিলেন।

বিলিয়নিয়ার ব্যবসায়ী এলন মাস্কের প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের মহাকাশযানের যাত্রী অভিজ্ঞ দুই নভোচারী রবার্ট বেনকেন ও ডগলাস হার্লে। উৎক্ষেপণের ৬ মিনিটের মধ্যেই কক্ষপথে প্রবেশ করে, তাদের বহনকারী ড্রাগন ক্যাপসুল।

বেসরকারি নভোযানে, প্রথম উৎক্ষেপনের দৃশ্য দেখতে বাড়তি আগ্রহ ছিলো মার্কিনীদের। অনেকেই ভিড় করেন, ফ্লোরিডার সৈকতে।

আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে প্রায় চার মাস অবস্থান করবেন দুই নভোচারী।

মন্তব্য করুন

comments