চট্টগ্রামে পশুর হাটে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে কঠোর থাকবে পুলিশ

আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলার বিভিন্ন এলাকায় বসবে কোরবানির পশুরহাট। এসব পশুরহাটে নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করে পুলিশ।

প্রতিবছর নিরপত্তা নিয়ে কাজ করলেও এবার বাড়তি যোগ হয়েছে করোনা। করোনার কারণে পশুর হাটে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতেও কাজ করতে হবে পুলিশকে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) ও জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও কোরবানির পশুরহাটে নিরাপত্তা নিশ্চিতের পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত কীভাবে করা যায় তা নিয়ে ভাবছেন।

বিষয়টি নিয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা শিগগির পশুর হাটের ইজারাদারসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন।

চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলা এলাকায় প্রতি বছর একাধিক অস্থায়ী পশুরহাট বসানো হয়। এসব পশুরহাটে চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে বেপারীরা পশু নিয়ে আসেন। ব্যাপক লোকসমাগমও হয় এসব পশুরহাটে।

এবারের কোরবানির হাটে ব্যাপক লোক সমাগম যাতে না হয় তা নিয়ে কাজ করছে পুলিশ। অন্যান্য জেলা থেকে লোকজন আসা যাওয়ার ক্ষেত্রেও কিছুটা কঠোর হওয়ার চিন্তা রয়েছে পুলিশের।

সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বলেন, কোরবানির পশুরহাটে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ কাজ করবে। পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। নিরাপত্তার পাশাপাশি পশুরহাটে সামাজিক দূরত্ব যাতে বজায় থাকে তা নিয়ে কাজ করবে পুলিশ।

জেলা পুলিশ সুপার এসএম রশিদুল হক বাংলানিউজকে বলেন, জেলার বিভিন্ন এলাকায় যেসব পশুরহাট বসবে সেখানে পুলিশ মোতায়েন থাকবে। হাটে আগত ক্রেতা-বিক্রেতার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কাজ করবে পুলিশ।

কোরবানির পশুরহাটে নিয়মিত জীবাণুনাশক স্প্রে ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ইজারাদারকে নির্দেশনা দেওয়া হবে বলে জানান সিএমপি কমিশনার ও জেলা পুলিশ সুপার।

পুলিশ জানিয়েছে, পশুরহাটে চাঁদাবাজি, জালনোট রোধে কঠোর থাকবে পুলিশ। নিয়মিত পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশও তৎপর থাকবে।

পশুরহাটের প্রবেশমুখে জীবাণুনাশক রাখার জন্য ইজারাদারকে নির্দেশনা দেওয়া হবে। এছাড়া হাটে আগত ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়কে মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক করা হবে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

comments

আগের সংবাদদেশে করোনায় ৪৪ জন মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩,২০১
পরের সংবাদশিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট দিতে শিক্ষামন্ত্রীর আহ্বান