ঘরে থেকেই স্থায়ীভাবে চাকরি করতে পারবেন টুইটারের কর্মীরা

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে বিশ্বজুড়ে সব কর্মীকে বাড়ি থেকে কাজ করার আদেশ দিয়েছিল মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটার। তবে এবার সব সময় বাড়ি থেকে কর্মীদের কাজ করার সুযোগ দিল প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জ্যাক ডরসি।

টুইটারের প্রধান নির্বাহী জ্যাক ডর্সি কর্মীদের উদ্দেশ্যে পাঠানো এক ইমেইলে এই ঘোষণা দেন। এর আওতায় করোনাভাইরাস জনিত সঙ্কট কেটে গেলেও অনির্দিষ্টকাল পর্যন্ত বা স্থায়ীভাবে নিজের বাড়ি থেকেই দাপ্তরিক কাজে যোগ দিতে পারবেন টুইটার কর্মীরা। 

সিইও জ্যাক ডরসি বলেন, সেপ্টেম্বরের আগে টুইটার তার অফিস খুলবে না। এ বছর অফিস খুললেও মানুষ সম্পর্কিত কোন কাজ হবে না। ২০২১ সালে কি পরিকল্পনা হবে তা পরে জানিয়ে দেওয়া হবে।

বাজফিড নিউজ সর্বপ্রথম টুইটার সিইও’র ঘোষণার খবর প্রকাশ করে। গণমাধ্যমটি জানায়, গত মার্চ থেকেই কর্মীদের ঘরে থেকে কাজ করার অনুমতি দিয়েছে টুইটার। কিন্তু নতুন সুবিধাটি যেসব কর্মীর অফিসে উপস্থিত থাকা তাদের কাজের প্রধান শর্ত তাদের ক্ষেত্রে কার্যকর হবে না।  যেমন; সার্ভার রক্ষণাবেক্ষণে নিয়োজিত প্রযুক্তি বিশারদ এবং কারিগরি কর্মীরা। খবর বিজনেস ইনসাইডারের। 

টুইটারের একজন প্রতিনিধি মার্কিন গণমাধ্যম বিজনেস ইনসাইডারকে বলেন, বিশ্বের যে কোনো স্থান থেকে দায়িত্ব পালনে কর্মীদের সুযোগ করে দেওয়ার বৃহত্তর লক্ষ্য থেকেই সাম্প্রতিক সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়েছে। বিগত কয়েক মাসের অভিজ্ঞতা এটা প্রমাণ করে যে এমন উদ্যোগ আগামীদিনেও অব্যাহত রাখা সম্ভব। 

ওই প্রতিনিধি আরও বলেন, ‘কখন অফিস খুলবে সেই সিদ্ধান্ত আমরাই নেব। ঠিক তেমনভাবেই অফিস খোলার পর সেখানে কবে কর্মীরা যোগ দেবেন সেটাও কোম্পানি তাদের বিবেচনার ওপর ছেড়ে দিয়েছে। তাড়াহুড়ো করে করোনাপূর্ব দাপ্তরিক পরিবেশ ফিরিয়ে এনে কর্মীদের অন্যায্য ঝুঁকির মধ্যে ফেলার কোনো প্রয়োজন আমরা দেখছিনা। তাই ধীরে ধীরে এবং পর্যায়ক্রমে অফিস সচল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

মঙ্গলবার জ্যাক ডর্সি জানান, নতুন সিদ্ধান্তের আওতায় আগামী দিনের পথচলায় টুইটার ঘরে থেকে কাজ করাকে সবার চেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দেবে।  

মন্তব্য করুন

comments

আগের সংবাদদুই দিনে এনসিসি ব্যাংক আগ্রাবাদ শাখার দুই কর্মকর্তার মৃত্যু
পরের সংবাদকরোনায় আরও একজন চিকিৎসকের মৃত্যু