করোনায় মারা গেলেন রিজেন্ট সাহেদের বাবা

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন বিতর্কিত রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদের বাবা সিরাজুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত ইউনিভার্সেল মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে (সাবেক আয়েশা মেমোরিয়াল) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

তবে এরপরও বাবার মরদেহ নিতে আসেননি সাহেদ। জানা গেছে, আসেননি কোনো নিকটাত্মীয়। রাতে লোক পাঠিয়ে হাসপাতাল থেকে মরদেহ নিয়ে গেছে পরিবার।

বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করে ওই হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশীষ কুমার চক্রবর্তী বলেন, সিরাজুল ইসলাম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন। তিনি তাদের হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তার নিউমোনিয়াসহ অন্যান্য জটিলতা ছিল।

জানা গেছে, গত ৪ জুলাই সাহেদ তার বাবাকে হাসপাতালে ভর্তি করান। ভর্তির পর প্রথম দুদিন সাহেদ তার বাবার খোঁজ নিয়েছেন। এরপর রিজেন্ট হাসপাতালে র‌্যাবের অভিযানের পর থেকে তার ফোন বন্ধ রয়েছে।

আশীষ কুমার বলেন, ‘আমাদের বলা হয়েছিল, এর আগে তিনটি পরীক্ষায় সিরাজুলের কভিড-১৯ নেগেটিভ আসে। কিন্তু তার লক্ষণ দেখেই মনে হয়েছে করোনা আক্রান্ত। আমাদের এখানে পরীক্ষায় তার করোনা পজিটিভ আসে।’

জানা গেছে, ভর্তির পর প্রথম দুই দিন সাহেদ তার বাবাকে দেখতে যান। তবে ৬ জুলাইয়ের পর থেকে এখানে তাদের আর কেউ আসছিলেন না।

ইউনিভার্সেল মেডিকেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, ‘উনার মৃত্যুর পর সাহেদের মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করে তা বন্ধ পাওয়া যায়। পরে সাহেদের স্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়।’

পরে সাহেদের স্ত্রী একজন প্রতিনিধিকে পাঠিয়েছেন। রাতে সিরাজুলের মরদেহ তার প্রতিনিধির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ দিকে সাহেদের স্ত্রী সাদিয়া আরাবী সংবাদমাধ্যমকে জানান, তিন দিন আগে তার স্বামীর সঙ্গে শেষ কথা হয়েছিল। তখন তিনি ফোন করে জানিয়েছিলেন তিনি ভালো আছেন। এরপর থেকে তার আর যোগাযোগ নেই।

জানা যায়, এর আগে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তেজগাঁও থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছিল। সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় সিরাজুল একাই হাসপাতালে ছিলেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সাহেদ বা তাঁর প্রতিষ্ঠানের কাউকে খুঁজে না পাওয়ায় বিপাকে পড়ে। সমস্যা এড়াতে তাঁরা জিডি করেন।

করোনার ভুয়া সনদ দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে গত ৬ জুলাই রাতে সাহেদসহ রিজেন্ট হাসপাতাল ও রিজেন্ট গ্রুপের ১৭ জনের বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করেছে র‍্যাব। এ নিয়ে বিভিন্ন অভিযোগে তার বিরুদ্ধে ৩৩টি মামলা হলো।

মঙ্গলবারের মামলায় র‍্যা বের অভিযানে আটক সাতজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। বুধবার আদালতের মাধ্যমে তাদের ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। এদিন সাহেদের অন্যতম সহযোগী তরিকুল ইসলাম ওরফে তারেক শিবলীকেও রাজধানীর নাখালপাড়া থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব।

এছাড়া রিজেন্ট গ্রুপের কার্যালয় এবং রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুরের রিজেন্ট হাসপাতালের শাখা দুটি সিলগালা করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

comments