যে গ্রামের মানুষ থাকে মাটির নীচে

39
শেয়ার

পুরো একটা গ্রাম মাটির নিচে অবস্থিত। সেখানে বসবাস করছে প্রায় ৩০০০ হাজার বাসিন্দা। তাদের ছয় প্রজন্ম মাটির নিচে এই গ্রামে বসবাস করেছে। জানা যায়, ২০০ বছর আগে থেকে বর্তমান বাসিন্দাদের পূর্বপুরুষরা মাটির নিচে ঘরবাড়ি তৈরি করে বসবাস শুরু করে।

সম্পূর্ণ মাটির নিচে অবস্থিত এই রহস্যময় অদ্ভুত গ্রামটি চীনের হেনান প্রদেশের সানমেনশিয়ায় অবস্থিত। এখানকার ঘরগুলোকে ‘ইয়ায়োডং’ বলা হয়। এই চিনা শব্দের অর্থ হলো ‘গুহার ঘর’। ঘরগুলো মাটি থেকে ২২-২৩ ফুট গভীর তৈরি। এগুলি লম্বায় ৩৩ থেকে ৩৯ ফুট পর্যন্ত হয়। মাটির তলায় এই ঘরগুলির তাপমাত্রা শীতকালে ১০ ডিগ্রী ও গ্রীষ্মে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি থাকে না।

ইতিহাসবিদদের মতে, ‘হেনান প্রদেশের এই ঘরগুলো ২০০ বছর আগে তৈরি হলেও ব্রোঞ্জ যুগে চিনের পার্বত্য এলাকায় ৪০০০ বছর আগে এ ধরণের বাড়ি তৈরি হতো।

বর্তমানে চীনের এই গ্রামটিতে বিদ্যুতের সকল সুযোগ সুবিধাসহ সব আধুনিক ব্যবস্থা রয়েছে। স্থানীয়রা জানান, ‘ভূমিকম্পেও ক্ষতিগ্রস্ত হয় না এই ঘরগুলো। ২০১১ সাল থেকে সরকার এই গ্রামটিকে সংরক্ষণ করছে।

সম্প্রতি এই ঘরগুলো পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, নির্ধারিত খরচে গ্রামটির ঘড় ভাড়া বা ক্রয়ও করতে পারে যে কেউ। একমাসের জন্য এখানকার একটি ঘর ভাড়া পাওয়া যায় মাত্র ২ ইউরোতে। আর ৩২ হাজার ইউরোতে কেনা যাবে এই ঘরগুলো।

মন্তব্য করুন

comments