চট্টগ্রামের বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগ নেতা ইসহাক মিয়া মারা গেছেন

53
শেয়ার

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া (৮৮) হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন (ইন্নানিল্লাহি ওয়া ইন্নাইয়ালাইহি রাজিউন)।

সোমবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে চট্টগ্রাম নগরীর ম্যাক্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় নগরীর জমিয়াতুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ মাঠে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে তাকে আগ্রাবাদ হাজিপাড়ায় পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হবে।

ইসহাক মিয়ার মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বলে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের উপ-প্রেসসচিব আশরাফুল আলম খোকন জানিয়েছেন। সাবেক সাংসদ ইসহাক মিয়ার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। মোহাম্মদ ইসহাক মিয়ার স্ত্রী, ৩ ছেলে ও ৭ মেয়ে রয়েছে।

পরিবারের সূত্রে জানা যায়, হৃদরোগের সমস্যা নিয়ে ২২ জুলাই শনিবার রাতে ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন সাবেক গণপরিষদ সদস্য ইসহাক মিয়া। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে নানা জটিল ও বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন তিনি।

বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহযোগী ইসহাক মিয়া ১৯৭০ এর নির্বাচনে গণ পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। চট্টগ্রামে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে তখনকার এইচ এম এরশাদ সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রী ব্যরিস্টার সুলতান আহমেদকে পরাজিত করে চট্টগ্রামের বন্দর আসন থেকে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন ইসহাক মিয়া।

প্রবীণ এই নেতার মৃত্যুতে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। নগর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা তার মরদেহ দেখতে হাসপাতালে ভিড় করেন। ইসহাক মিয়ার মৃত্যুর খবর শুনে সকালে হাসপাতালে ছুটে যান নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন।

মন্তব্য করুন

comments