“‘মা’ আমার জীবনের মুকুট, তাই সমাবর্তন হ্যাটটা মায়ের” (ছবি ভাইরাল)

63
শেয়ার

‘মা’ আমার জীবনের মুকুট, তাই সমাবর্তন হ্যাটটা মায়ের। ‘আব্বা’ সারাজীবনই আগলে রেখেছেন সব আঘাত থেকে, তাই গাউনটা কৃষক বাবার ঘামে ভেজা শরীরটাতেই বেশি মানায়। আর ‘আমি’ বাকি জীবনটা এভাবে যেন মধুর এ ভার নিতে পারি’। ভাই’টাকে প্রচন্ড মিস করছি। এই আমার সমাবর্তন।”

এই কথাগুলোর পর বোধ হয় আর বেশি কিছু লিখতে হয় না। সবটাই বলা হয়ে গিয়েছে ওই ক’টি শব্দে।

এক দরিদ্র বাবার সন্তান ওয়ালি উল্লাহ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য বিভাগ থেকে স্নাতক পাশ করেছেন। কাল, শনিবার, বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবর্তন অনুষ্ঠান। তার আগেই অবশ্য শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সমাবর্তনের আনন্দে মেতেছেন। আর সেখানেই ওয়ালি-উল্লাহ তাঁর মা-বাবাকে নিয়ে গিয়েছিলেন। মায়ের মাথায় হ্যাট আর বাবার গায়ে গাউন পরিয়ে রিক্সায় চেপে একখানা ছবি তুলেছিলেন তিনি। সেই ছবি সোশ্যাল সাইটে উঠতেই নিমেশ ভাইরাল হয়।

অনেক ক্ষেত্রেই আমরা ভাইরাল হওয়া সব কিছুর সত্যতা যাচাইয়ের প্রয়োজন বোধ করি না। অনেক সময় ভাইরাল হওয়া ছবি বা ভিডিও-র পিছনের গল্পটা থাকে একরকম, আর আমাদের কাছে কেউ বা কারা তুলে ধরেন অন্য গল্প। আমরা বেমালুম স্রোতে গা ভাসিয়ে দিই। লাইক, কমেন্টস, রিঅ্যাকশন দিয়ে রাগ, দুঃখ, আনন্দ, হতাশা, ভালবাসা, শ্রদ্ধা জাহির করি। বহু ক্ষেত্রেই কিন্তু আমরা ভুল কারণেই প্রতিক্রিয়া জাহির করে ফেলি।

ওয়ালি-উল্লাহের এই ঘটনাটা তাঁর উদাহরণ। দরিদ্র পরিবারের এক গর্বিত সন্তান তাঁর বাবা-মাকে কুর্ণিশ জানাতে চেয়েছিলেন। চেয়েছিলেন, তিনি জীবনে যেটুকু সাফল্য পেয়েছেন তাঁর সিংহভাগ কৃতিত্ব বাবা-মাকে দিতে। সেই কৃতজ্ঞতা বোধ ওয়ালি-উল্লাহ প্রকাশ্যে আনতে চেয়েছিলেন। গোটা দুনিয়াকে জানাতে চেয়েছিলেন, বাবা-মায়ের ঋণ মেটানো যায় না। তবে কৃতজ্ঞতা বোধটুকু জাহির করা যায় অনায়াসেই। কিন্তু সেখানেও মুশকিল। আসলে তিনি একজন কৃষক বাবার সন্তান। কিন্তু তাঁর এই পোস্ট ভাইরাল হতেই গুজব হয়, তাঁর বাবা আদতে নাকি একজন রিক্সাচালক।

ওয়ালি-উল্লাহ পরে পুরোটাই খোলসা করেন। পরের এক পোস্টে লেখেন, ”আমি ‘কৃষক’ বাবার সন্তান। আব্বা সারাজীবন আমাদের জন্য কষ্ট করেছেন, এখনও করছেন। পরিবারে, আমাদেরকে উনি শুধু দিয়েই গিয়েছেন, বিনিময়ে কিছুই দিতে পারিনি এখনও। ওনার শরীরও ভাল যাচ্ছেনা এখন খুব একটা। তাই আমার সমাবর্তনে একান্ত ভালোলাগার, ভালোবাসার কিছু মুহূর্ত উপহার দেওয়ার চেষ্টা করেছি।একান্ত নিজের ভালোলাগা থেকেই ছবি তুলেছি যা অনেকের ভালো লেগেছে, সে আমার পরম পাওয়া, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি সবার প্রতি।কিন্তু বিভিন্ন জায়গায় একটু ভুল তথ্য দেখলাম, যা সবাইকে অবগত করার প্রয়োজন বোধ করলাম।আমার বাবা রিক্সাচালক নন, উনি গ্রামের একজন কৃষক। অনাকাঙ্খিত এই তথ্য কিভাবে ছড়ালো সে ব্যাপারে আমি অবগত নই। সবাই ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এবং আমার ও আমার পরিবারের জন্য দোয়া করবেন।”

মন্তব্য করুন

comments