সারা দেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ কোটা সংস্কার আন্দোলন

31
শেয়ার

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে গতকাল সারাদিন বিক্ষোভ ও রাতভর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় পুলিশ ও ছাত্রলীগের সাথে সংঘর্ষের পর আজ সকাল থেকে দেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ ও অবরোধ।সারা দেশের প্রায় সব বিশ্ববিদ্যালয়েই চলছে এ বিক্ষোভ। গতকাল রোববার দুপুর থেকে শুরু হওয়া এই আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে সব বিশ্ববিদ্যালয়ে আর এতে যোগ দিয়েছে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীরা।

সকাল থেকেই আন্দোলনের কেন্দ্রস্থল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে ও আশপাশের এলাকায় পুলিশ ও র‍্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। শাহবাগ, দোয়েল চত্বর, নীলক্ষেতসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে প্রচুর সংখ্যক পুলিশ ও র‍্যাবের উপস্থিতি দেখা গেছে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় সাঁজোয়া যান ও জলকামান প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সকাল থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে থেকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ এবং সড়ক ও রেল অবরোধের খবর পাওয়া গেছে।

আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশনা অনুযায়ী সেসব ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছেন।

শাহবাগে আন্দোলনকারীদের উপর পুলিশের হামলার প্রতিবাদে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) রোববার রাত ১টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শিক্ষার্থীরা।এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের এলাকায় মিছিল শেষে শামসুজ্জোহা চত্তরে অবস্থান ও ক্যাম্পাসে মিছিল শেষে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা। এছাড়া কোটা সংস্কারের দাবিতে সোমবার থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, কোটা সংস্কারের দাবিতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অন্দোলনকারীরা অনির্দিষ্টকালেরর জন্য ক্লাস বর্জন করারও ঘোষণা দিয়েছে।হামলার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেনও অবরোধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা।এসময় শত শত শিক্ষার্থী রেললাইনের ওপর দাঁড়িয়ে কোটা সংস্কারের স্লোগান দেন।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও কোটা সংস্কার আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করে অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছেন। ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে শতাধিক শিক্ষার্থী সকাল ৯টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কর্মসূচি পালন করছেন।

কোটা সংস্কার আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করে বিক্ষোভ করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। আজ বেলা ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের সামনে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ শুরু করে।

এসময় ঢাকায় চাকরি প্রার্থীদের কোটা সংস্কার আন্দোলনে হামলার ঘটনার প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করার সময় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এ আন্দোলনে অংশ নিয়ে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তাদের ক্লাস বর্জন করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেছেন।

যেসব দাবিতে শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কারের জন্য আন্দোলন করছেন তার মধ্যে রয়েছে, কোটা সহনীয় মাত্রায় কমিয়ে আনতে হবে, কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে খালি থাকা পদগুলোতে মেধাবীদের নিয়োগ দিতে হবে, কোটা সুবিধা নিয়ে চাকরি পরিবর্তন বন্ধ করতে হবে, একবার কোটা সুবিধা নিয়ে পুনরায় অন্য চাকরিতে যেতে চাইলে মেধার ভিত্তিতে যেতে হবে, শুধু কোটায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া যাবে না।

সেই সাথে সংবিধানের ২৯ অনুচ্ছেদের পূর্ণ বাস্তবায়নের জন্যও কোটা সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

উল্লেখ, বাংলাদেশের সংবিধানের ২৯ নং অনুচ্ছেদে অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার জন্য বিশেষ সুবিধা দেওয়ার সুযোগ রেখে প্রজাতন্ত্রের সব চাকরিতে নিয়োগে বৈষম্য বিলোপ করার কথা বলা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

comments