X

‘নির্বাচন কাছে এলেই সেনা মোতায়েন নিয়ে সিদ্ধান্ত’-সিইসি

আগামী জাতীয় নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আরও সময় রয়েছে জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা বলেছেন, নির্বাচনের আগ দিয়ে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) খান মো. নূরুল হুদা এ কথা বলেন।

কেএম নুরুল হুদা বলেন, “সেনাবাহিনী মোতায়েনের এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের রয়েছে।”

বর্তমান আইনী কাঠামোতে সেনা মোতায়েন কোন প্রক্রিয়ায় হবে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘সেনা নিয়োগ কীভাবে হবে, তাদের দায়িত্ব কী হবে তা নির্ধারণ করবে ইসি। এ বিষয়ে বলার সময় এখনও আসেনি। নির্বাচন আসুক তখন পরিবেশ পরিস্থিতি বিবেচনা করে দেখা যাবে। তবে বিদ্যমান কাঠামোতেই সেনা মোতায়েন করা যাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন যে আইন আছে, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সেগুলো যথেষ্ট। নির্বাচন কমিশন সেটা যথাযথভাবে প্রয়োগ করবে। যখন, যেভাবে আইন থাকে, তখন সেভাবেই নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব পালন করেছে।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনে কোন কর্মকর্তা আইন অমান্য করলে শাস্তির বিধান রয়েছে। অর্থাৎ কারো অপরাধ প্রমাণ হলে তাদের শাস্তি পেতে হবে।

নির্বাচনকালীন সরকার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে নূরুল হুদা বলেন, ‘এটা সাংবিধানিক বিষয়। সংবিধান পরিবর্তন করা কমিশনের পক্ষে সম্ভব না। এটা রাজনৈতিক বিষয়। এদেশেতো বহুমুখী নির্বাচন হয়েছে। যখন যে সরকার এসে যে নির্বাচন করার দায়িত্ব কমিশনকে দিয়েছে, সেভাবে নির্বাচন করেছে। অর্থাৎ সংবিধানের আলোকে সরকার যে আইন তৈরি করে দেয়, ইসি সেভাবে নির্বাচন করে। সেই আইনের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। সাংবিধান মেনে ইসিকে চলতে হয়। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত সংবিধানে যেভাবে আছে, সেভাবে নির্বাচন হবে।’

জাতীয় নির্বাচন নিয়ে গত প্রায় আড়াই মাস ধরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, পর্যবেক্ষক সংস্থা, গণমাধ্যম ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, নারী নেত্রী এবং নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের সাথে সংলাপ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এসব কথা বলেন।

সংলাপে বেশিরভাগ রাজনৈতিক দলই নির্বাচনের আগে সেনা মোতায়েনের পক্ষে মত দিয়েছে। তবে সেনাবাহিনীর কেমন ক্ষমতা থাকবে তা নিয়ে অবশ্য ভিন্ন ভিন্ন মত পাওয়া গেছে। কোনো কোনো দল সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে মোতায়েনের পক্ষে মত দিয়েছে। অন্যরা স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে সেনা মোতায়েন চেয়েছে।

অন্যদিকে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড ও ‘না ভোট’ পুনঃপ্রবর্তনের ওপর জোর দিয়েছেন। আগামী বছর ডিসেম্বরে নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

 

মন্তব্য করুন

comments