রাষ্ট্রপতিকে লেখা ছুটির আবেদনে যা লিখেছেন প্রধান বিচারপতি

56
শেয়ার

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার এক মাসের ছুটিতে যাওয়া নিয়ে দেশব্যাপী ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়। বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল, সরকারের চাপের মুখে প্রধান বিচারপতিকে ছুটি নিতে বাধ্য করা হয়েছে।

এসব সমালোচনার মধ্যেই তার ছুটির আবেদনপত্র প্রকাশ করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। বুধবার সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে আইনমন্ত্রী রাষ্ট্রপতিকে লেখা প্রধান বিচারপতির চিঠিতি সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন। ওই চিঠিতে প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রপতির উদ্দেশ্যে লিখেছেন,

‘আপনার সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, আমি গত বেশ কিছুদিন যাবৎ নানাবিধ শারীরিক সমস্যায় ভুগছি। আমি ইতিপূর্বে ক্যানসার রোগে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘ সময় চিকিৎসাধীন ছিলাম। বর্তমানে আমি বিভিন্ন শারীরিক জটিলতায় ভুগছি। আমার শারীরিক সুস্থতার জন্য বিশ্রামের একান্তই প্রয়োজন। ফলে আমি ৩ অক্টোবর হতে ১ নভেম্বর, ২০১৭ পর্যন্ত ৩০ দিন ছুটি ভোগ করতে ইচ্ছুক। এমত অবস্থায় ৩ অক্টোবর হতে ১ নভেম্বর ২০১৭ তারিখ পর্যন্ত ৩০ দিনের ছুটির বিষয়ে মহাত্মনের সানুগ্রহ অনুমোদন এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।’

বুধবার সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে আনিসুল হক রাষ্ট্রপতিকে লেখা প্রধান বিচারপতির ওই চিঠিটি প্রথমে পড়ে শোনান।

পরে টেলিভিশনের ক্যামেরার সামনে ওই চিঠি তিনি তুলে ধরেন এবং গণমাধ্যমকর্মীদের চিঠির ছবি তোলার অনুমতি দেন।

পরে আইন সচিব আবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হকের হাত থেকে সাংবাদিকরা প্রধান বিচারপতির ছুটির আবেদনের ছবি তুলে নেন।

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়কে কেন্দ্র করে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে বেশ কিছুদিন ধরে প্রধান বিচারপতির সমালোচনা চলছিল। এমনকি তার পদত্যাগ দাবিতে আওয়ামীপন্থি আইনজীবীরা আল্টিমেটামও দিয়েছিলেন।

এর মধ্যেই গত সোমবার প্রধান বিচারপতি ছুটি চান। পরে সরকারের এক প্রজ্ঞাপণে বলা হয়, রাষ্ট্রপতি তার এক মাসের ছুটি মঞ্জুর করেছেন এবং এই সময়ে জ্যেষ্ঠ বিচারক মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞাকে প্রধান বিচারপতির কার্যভার দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য করুন

comments