গুলশান হামলার ‘অন্যতম পরিকল্পনাকারী’ রাশেদ গ্রেফতার

39
শেয়ার
ছবিঃ সংগৃহিত

গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলার ‘অন্যতম পরিকল্পনাকারী’ আসলাম হোসাইন রাশেদ ওরফে রাশেদুল ইসলাম র‍্যাশকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে নাটোরের সিংড়া বাজার বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট ‘নব্য জেএমবি’র ওই নেতাকে গ্রেফতার করে। পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এসএমএসে এ তথ্য জানানো হয়।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলার ‘অন্যতম প্রধান পরিকল্পনাকারী’ ও সমন্বয়কারী আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আবু জাররা ওরফে র‌্যাশ (২৪) এর অবস্থান শনাক্ত করা হয়। এমনটা জানান বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মণ্ডল।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১ জুলাই রাতে হলি আর্টিজান রেস্তারাঁয় সশস্ত্র হামলা চালায় পাঁচ জঙ্গি। জঙ্গিরা ১৭ বিদেশি, দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ২২ জনকে হত্যা করে। পরদিন সকালে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে সেখানে যৌথ বাহিনী অভিযান চালায়। অভিযানে নিহত হয় পাঁচ জঙ্গি।

এ পর্যন্ত, হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলার মূল পরিকল্পনাকারীসহ বিভিন্ন পর্যায়ে নব্য জেএমবির ২১ জন জড়িত থাকার তথ্য-উপাত্ত পেয়েছেন তদন্তকারীরা। তাদের মধ্যে অন্তত ১৫ জন গত এক বছরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন অভিযানে নিহত হন। গ্রেফতারের পর তিনজন কারাগারে রয়েছেন।

এ মাসের শুরুতে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম জানান, পলাতক পাঁচ জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করতে না পারার কারণে আলোচিত এই মামলাটির অভিযোগপত্র দিতে পারছে না পুলিশ। তখন পর্যন্ত সন্দেহভাজনদের খাতায় নাম ছিল, সোহেল মাহফুজ, রাশেদ, বাশারুজ্জামান ওরফে চকলেট, মিজানুর রহমান ওরফে ছোট মিজান ও হাদীসুর রহমানের।

৮ জুলাই সোহেল মাহফুজকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তখন তারা জানতে পারে, এর আগে গত ২৬ ও ২৭ এপ্রিল শিবগঞ্জে জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে নিহত চারজনের মধ্যে বাশারুজ্জামান ও ছোট মিজানও রয়েছেন। বাকি দুজনের মধ্যে রাশেদ গ্রেফতার হলেও হাদীসুর রহমান সাগর এখনও পলাতক।

মন্তব্য করুন

comments