‘দুদক’ হটলাইন ‘১০৬’

159
শেয়ার

দুর্নীতি ও অনিয়মের তথ্য সরাসরি জানাতে এখন থেকে চালু হলো দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) হটলাইন ‘১০৬’। বিনা খরচে এবং যে কোন মোবাইল বা টেলিফোন থেকে এই নাম্বারে কল করে দুদককে দুর্নীতির তথ্য, অভিযোগ জানানো যাবে।অফিস চলাকালীন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত এই নম্বরে ফ্রি কল করে দুর্নীতির তথ্য জানানো যাবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (২৭ই জুলাই)দুদকের মিডিয়া সেন্টারে ‘হটলাইন ১০৬’ উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

হট লাইনের উদ্বোধন করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘আমরা সবাই দুর্নীতিগ্রস্ত, ক্ষমতাবানরাই দুর্নীতি করে।’

এসময় অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, সেবা প্রদানের ক্ষমতা যাদের হাতে তারাই দুর্নীতি করে। তবে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে দুর্নীতি প্রতিরোধ সম্ভব।

এছাড়া দুর্নীতি কমিয়ে আনার লক্ষ্যে জনসাধারণকে সচেতন হওয়ার আহ্বানও জানান তিনি। অর্থমন্ত্রী বলেন, জনসাধারণ সচেতন হলে আট থেকে দশ বছরের মধ্যে দুর্নীতি কমে যাবে।

দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (বিটিআরসি) ‘১০৬’ নম্বরটি দিয়েছে।

দুদকের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি থেকে জানা যায়, দেশের যে কোনো প্রান্ত থেকে যে কোনো নাগরিক সরাসরি দুর্নীতির তথ্য, অভিযোগ জানাতে পারবেন।একাধিক ব্যক্তি একই সঙ্গে অভিযোগ জানাতে পারবেন।

তাদের দেওয়া তথ্য লিপিবদ্ধ করে ও যাচাই করে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। কেউ চাইলে অভিযোগকারীর পরিচয় গোপন রাখা হবে।। অভিযোগকারী চাইলে তাঁর বক্তব্য রেকর্ডও করা হবে।

হটলাইনের সুবিধা সম্পর্কে দুদক জানায়, এর মাধ্যমে জনগণের সঙ্গে তাদের প্রত্যক্ষ সংযোগ স্থাপিত হবে। দ্রুত দুর্নীতির তথ্য প্রমাণ পাওয়া যাবে। দুর্নীতির ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে অথবা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে এমন অভিযোগ পেলে তাৎক্ষণিক প্রতিকার বা প্রতিরোধের ব্যবস্থা নেওয়া যাবে। দুর্নীতির ঘটনা ঘটার আগেই প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে জনমত সৃষ্টি এবং কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থা সৃষ্টি হবে।

দুদক সূত্র থেকে জানা যায়, হটলাইনে পাওয়া দুর্নীতির তথ্য, অভিযোগসহ অনান্য কাজ সম্পন্ন করতে এরই মধ্যে দুদকের প্রধান কার্যালয়ের তিন তলায় ৩১৬ নম্বর কক্ষে ‘দুদক অভিযোগ কেন্দ্র’ খোলা হয়েছে। পরীক্ষামূলকভাবে অভিযোগ গ্রহণ করা হচ্ছে।

প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা হটলাইনে দুর্নীতির তথ্য, অভিযোগ সংগ্রহ করবেন। এরপর যে কেউ চাইলে হটলাইনে ফোন করে অভিযোগ জানাতে পারবেন। এ সময় অভিযোগটি রেকর্ড হয়ে থাকবে, যা পরের দিন লিপিবদ্ধ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

‘হটলাইন-১০৬’ পরিচালনার জন্য ৫০ জন কর্মকর্তাকে প্রযুক্তি এবং আচরণগত বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণ দিয়েছে কমিশন।

মন্তব্য করুন

comments