মহেশখালীতে স্কুলছাত্রীর ‘আত্মহত্যা’র ঘটনায় সৎ মা গ্রেফতার

39
শেয়ার

স্কুলছাত্রী আত্মহত্যার সাত মাস পর কক্সবাজারের মহেশখালীতে অবশেষে ডাক্তারি রিপোর্ট নিয়ে সৎ মায়ের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা রুজু করেছে মহেশখালী পুলিশ। এই মামলায় অভিযুক্ত সৎ মা সাবিনা ইয়াসমিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নিহত মাসুকা আক্তার (১৩) উপজেলার বড় মহেশখালী বালিকা বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ও পশ্চিম দেবাঙ্গপাড়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের মেয়ে।

ঘটনার সূত্র ও পুলিশে ভাষ্যমতে, গত ৭মার্চ সকালে ১৮০ টাকার জন্য সৎ মায়ের হাতে মার খাওয়ার পর বড় মহেশখালী বালিকা বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী ও পশ্চিম দেবাঙ্গপাড়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ১ম স্ত্রীর মেয়ে আহত মাসুকা আত্মহত্যা করে।মাসুকার বাবা হেলাল উদ্দিন স্কুলের বেতনের জন্য মেয়েকে ১৮০ টাকা দেয়। মাসুকা সেই টাকা পাঠ্য বইয়ের ভিতর রাখে। স্কুলে যাওয়ার সময় টাকা খুঁজতে গিয়ে টাকা না পাওয়ায় সৎ মা সাবিনা ইয়াসমিনের সঙ্গে মাসুকার কথা-কাটাকাটি হয়। মাসুকার দাবী ছিল সৎ মা’র অপর ছেলে স্কুলের ১৮০ টাকা চুরি করেছে। কথা-কাটাকাটির এক পর্যায়ে সৎ মা মাসুকাকে আচারের বোতল নিয়ে কপালে আঘাত করে।এতে কপালে গুরুতর ফুলা জখম হয়।এতে সে অভিমান করে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।পরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে। স্থানীয় গোরস্থানে দাফন করা হয় মাসুকাকে।ওই দিন মাসুকার বাবা হেলাল উদ্দিন বাদী হয়ে মহেশখালী থানায় ইউডি মামলা দায়ের করেন।

দীর্ঘ সাত মাস পর ২৩ অক্টোবর ময়নাতদন্তের রির্পোটে শ্বাসরোধ ও কপালে রক্ত জমাট আঘাতের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে ডাক্তারি প্রতিবেদন পাওয়ার পর মহেশখালী থানার সুরতহাল রির্পোট তৈরিকারী কর্মকর্তা এস আই ইমাম হোছেন চৌধুরী বাদী হয়ে সৎ মা সাবিনা ইয়াসমিনকে একমাত্র আসামি করে থানায় ৩০২ ধারায় সৎ মায়ের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে বড় মহেশখালী পশ্চিম দেবাঙ্গপাড়া গ্রাম থেকে সৎ মা সাবিনা ইয়াসমিনকে গ্রেফতার করে।

মাসুকার জন্মদাতা মা মোমেনা বেগম দুই সন্তান নিয়ে হেলাল উদ্দিনের সংসার থেকে ডিভোর্স হলে কুতুবজোম খোন্দকার পাড়া গ্রামের ইলিয়াস খলিফার মেয়ে সাবিনা ইয়াসমিনের সাথে বিয়ে হয়। গ্রেফতার হওয়া সাবিনার দুগ্ধ সন্তান রয়েছে।

মহেশখালী থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান, ঘটনার বিষয়ে ডাক্তারী রির্পোটের পর ৩০২ধারায় হত্যা মামলা রুজু হয়েছে। আরো তদন্ত করা হবে। গ্রেফতার হওয়া আসামীকে আদালতে সোর্পদ করা হবে।।

মন্তব্য করুন

comments