টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যানের বাড়ি থেকে ১৫ রোহিঙ্গা উদ্ধার

37
শেয়ার

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমদের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১৫ জন রোহিঙ্গা নারী ও শিশুকে উদ্ধার করেছে যৌথ টাস্কফোর্স।
বুধবার সন্ধ্যায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট মো. এহসান মুরাদের নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট এহসান মুরাদ জানান, ‘টেকনাফের বিভিন্ন বাড়িতে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় নেয়ার খবর পেয়ে কয়েকটি বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। এসময় একটি বাড়ি থেকে নারী-শিশুসহ ১৫ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়। তাদের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাঠানোর পাশাপাশি আশ্রয়দাতার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’
তিনি জানান, রোহিঙ্গাদের একত্রে করতে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। এ ছাড়া স্থানীয় সাংসদের সৎ ভাইসহ অারও তিন বাড়িতে অভিযান চালানো হয়েছে। তবে ওই বাড়িগুলোতে কাউকে পাওয়া যায়নি।

তবে টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমদের দাবি, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে একটি টিম তার ভাড়াটে বাসায় গিয়েছিল। তাদের সাথে তার কথা হয়েছে কিন্তু তার বাড়িতে কোনও রোহিঙ্গা পায়নি ওই টিম।

এদিকে, স্থানীয়রা জানায়, মিয়ানমার থেকে আগত রোহিঙ্গাদের মধ্যে স্বচ্ছল ও ইয়াবা-সংশ্লিষ্টরা ক্যাম্পে না গিয়ে বিভিন্ন ইয়াবা-ব্যবসায়ীর বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। যৌথ টাস্কফোর্স বুধবার বিকেল থেকে চিহ্নিত ও তালিকাভুক্ত চার ‘ইয়াবা গডফাদারের’ বাড়িতে অভিযান চালায়। এর মধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যানের বাড়ি থেকে রোহিঙ্গাদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

‘ইয়াবা গডফাদার’ হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকায় জাফর চেয়ারম্যান ও তার তিন ছেলের নাম রয়েছে বলেও জানিয়েছে এলাকাবাসী।
টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইন উদ্দিন খান বলেন, ‘অভিযানের খবর শুনেছি। তবে বিস্তারিত জানি না।’

মন্তব্য করুন

comments