রোহিঙ্গা বোঝাই নৌকাডুবি : শিশুসহ ১২ জনের লাশ উদ্ধার

79
শেয়ার
ফাইল ছবি

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার সমুদ্র উপকূলে আবারো রোহিঙ্গাবাহী নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় সোমবার সকাল ৯টা পর্যন্ত শিশু সহ ১২ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।নিখোঁজ রয়েছেন এখনো ২০ থেকে ২৫ জন।

গতকাল রোববার রাত ১১টার দিকে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে প্রবেশকালে টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপের ঘোলারচর পয়েন্টে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে।মৃতদের মধ্যে ১০ শিশু, এক নারী ও এক পুরুষ রয়েছে।

নৌকাডুবিতে বেঁচে আসা এক রোহিঙ্গা জানান, তার মা ও স্ত্রী তীরে উঠে আসতে পারলেও দুই বোন ও দুই শিশু নিখোঁজ রয়েছে। নৌকায় ৪০ জনের মতো রোহিঙ্গা ছিল। নৌকাটি শাহপরীর দ্বীপের ঘোলারচর পয়েন্টে ঢেউয়ের কবলে উল্টে যায়।তাদের চিৎকারে বিজিবির টহল দল বিষয়টি জানতে পেরে উদ্ধার অভিযানে নামে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল বলেন, ঘোলারচরে নৌকাডুবির খবর পাওয়ার পর পুলিশের একটি দলকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। রাত ১টার দিকে এক বৃদ্ধা ও ১৩ বছরের এক শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে সোমবার সকাল ৯টা পর্যন্ত আরো ১০ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।নিখোঁজদের সন্ধানে বিজিবি ও কোস্টগার্ড সদস্যরা কাজ করছে বলেও জানান তিনি।

শাহপরিরদ্বীপ বিওপির বিজিবির কোম্পানি কমান্ডার আ. জলিল সাংবাদিকদের জানান, উদ্ধার করা রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন নৌকাটিতে কমপক্ষে ৪০জন যাত্রী ছিল। ঘটনার পর দুই শিশুসহ ১৩জনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

টেকনাফ থানার ওসি মো. মাইন উদ্দিন খান জানান, নৌকাডুবির ঘটনায় শিশুসহ ১২ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনও অনেক নিখোঁজ রয়েছে। তাদের উদ্ধার অভিযান চলছে।

এর আগে গত ২৮ সেপ্টেম্বর টেকনাফের পাশের উপজেলা উখিয়ার ইনানী সৈকতের কাছে সাগরে রোহিঙ্গাবাহী নৌকাডুবির ঘটনায় ২০ জন মারা যান।

মন্তব্য করুন

comments