নিখোঁজের তিনদিন পর সেপটিক ট্যাংকি থেকে স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার

94
শেয়ার

কুমিল্লার লাকসামে নিখোঁজের তিনদিন পর সেপটিক ট্যাংকি থেকে শারমিন আক্তার (১৮) নামে এক স্কুলছাত্রীর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।বুধবার বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার বাকই ইউনিয়নের কোঁয়ার গ্রামের পশ্চিমপাড়ায় অবস্থিত একটি মাদ্রাসার সেপটিক ট্যাংক থেকে বস্তাবন্দি অবস্থায় ওই স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

পশ্চিম পাড়া জামে মসজিদের সেপটিক ট্যাংকে ওই তরুণীর বন্তাবন্দি লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেয় এলাকাবাসী। খবর পেয়ে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে।পরে ময়নাতদন্তের জন্য তা কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ।

শারমিন আক্তার উপজেলার বাকই ইউনিয়নের কোঁয়ার গ্রামের রুস্তম মিয়ার মেয়ে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শারমিন আক্তার মুদাফরগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজে স্কুলে নবম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করেছিল। তার পরিবার দরিদ্র হওয়ার কারণে সে আর পড়ালেখা চালিয়ে যেতে পারেনি।গত রবিবার বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর থেকে কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না শারমিনের। পরিবারের লোকজন বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করলেও তার কোনও হদিস মেলেনি। সর্বশেষ বুধবার সকালে পশ্চিমপাড়ায় অবস্থিত হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্ররা গ্রামের মসজিদের আশপাশ পরিষ্কার করতে গেলে সেফটিক ট্যাংকে বস্তাবন্দি অবস্থায় শারমিনের লাশ দেখতে পায়।এরপর ঘটনাটি পুলিশকে জানানো হয়।

ধর্ষণ শেষে হত্যা করে তাকে সেপটিক ট্যাংকে লাশটি গুম করা হয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করছে পুলিশ এবং এলাকাবাসী ।

লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মাহফুজ বলেন, তরুণীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।অপরাধী শনাক্তে পুলিশের তদন্ত চলছে।

মন্তব্য করুন

comments