পাবনায় ডাকাত সন্দেহে পুলিশকে গণপিটুনি

63
শেয়ার

পাবনার বেড়া উপজেলার নাকালিয়া বাজারে ডাকাত সন্দেহে গজারিয়া থানার দুই পুলিশ সদস্যসহ চারজনকে গণধোলাই দিয়েছে জনতা।

মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। গণধোলাই দিয়ে তাদের আটক করে রাখে স্থানীয় জনতা। পরে খবর পেয়ে পাবনার বেড়া থানা পুলিশ তাদের উদ্ধার করে গুরুতর আহত অবস্থায় বেড়া হাসপাতালে ভর্তি করে।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার গভীর রাতে একটি ট্রলারযোগে মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানার দুই পুলিশ সদস্য এক ডাকাতি মামলার দুই আসামি গ্রেফতার করে শাহজাদপুর থেকে মামলার আলামত নিয়ে নিজ থানায় ফিরছিলেন।

রাত আড়াইটার দিকে তারা বেড়া উপজেলার নাকালিয়া এলাকায় পৌঁছান। সেহরির সময় হওয়াতে তারা ঘাটে ট্রলার ভিড়িয়ে বাজারের মধ্যে যান।

এ সময় ওই বাজারের নাইটগার্ড আব্দুল লতিফ তাদেরকে দেখে ডাকাত বলে সন্দেহ করলে তাদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে লতিফ মাইক দিয়ে ডাকাত ডাকাত চিৎকার শুরু করে।

তার চিৎকার শুনে চারদিক থেকে স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে পুলিশের পোশাক পরিহিত অবস্থায় এসআই লাল মিয়া ও কনস্টেবল চুন্নু মিয়া এবং তাদের সঙ্গে থাকা খোরশেদ (৩৫) ও ট্রলারের মাঝি নরেশকে গণধোলাই দিয়ে আটকে রাখে।

এ সুযোগে অপর আসামি আব্দুল হক ও আরেক মাঝি দুলাল নদীতে ঝাঁপ দিয়ে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে বেড়া থানা পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে রাতেই বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

পাবনার বেড়া উপজেলার হাটুরিয়া-নাকালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এক বছরের ব্যবধানে নাকালিয়া বাজারের স্বর্ণের দোকানে বেশ কয়েকটি গণডাকাতি সংগঠিত হওয়ায় স্থানীয় লোকজনের মধ্যে এক ধরণের আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এই আতঙ্ক থেকেই উদ্ভুত ঘটনা ঘটে। বেড়া মডেল থানার ওসি আব্দুল মোতালেব হোসেন বলেন, এটি একটি ভুল বুঝাবুঝি ছাড়া কিছু না।

মন্তব্য করুন

comments