জার্মানিতে গোপন বৈঠকে বসেছিলেন ট্রাম্প-পুতিন!

54
শেয়ার
আনুষ্ঠানিক বৈঠকে ট্রাম্প ও পুতিন। ছবিঃ বিবিসি

জার্মানিতে জি-২০ সম্মেলনের ফাঁকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বৈঠক করেছিলেন। তাদের মধ্যে দুবার বৈঠক হয়েছিল, যার একটি এতদিন অজানা ছিল গনমাধ্যমগুলোর।

চলতি মাসে জার্মানিতে অনুষ্ঠিত জি-২০ সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মধ্যে একবার নয়, বৈঠক হয়েছিল দু্ইবার। আজ বুধবার বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এই খবর প্রকাশিত হয়। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ও হোয়াইট হাউসের এক কর্মকর্তার কাছ থেকেও এমন তথ্য জানা গেছে।

ইউরেশিয়া গ্রুপের নিউজ লেটারে প্রথম কথিত সেই দ্বিতীয় বৈঠকটি গোপন করার খবর প্রকাশিত হয়। খবরে বলা হয়, দুই প্রেসিডেন্টের মধ্যকার আনুষ্ঠানিক বৈঠকের কয়েক ঘণ্টা পর একজন রুশ অনুবাদকের উপস্থিতিতে দু’জন একান্তে কথা বলেন। যদিও ডোনাল্ড ট্রাম্প জি-২০ সম্মেলনে দুই নেতার ‘গোপন নৈশভোজ’ ও বৈঠকের বিষয়টিকে ‘ভুয়া সংবাদ’ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন।

দ্বিতীয় এই বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে ট্রাম্প একাই অংশ নেন। যুক্তরাষ্ট্রের অন্য কোনো কর্মকর্তা এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না। অন্যদিকে রাশিয়ার পক্ষে নিজের সরকারি দোভাষীসহ অংশ নেন পুতিন। দুই নেতার মধ্যকার এই বৈঠক এক ঘণ্টা স্থায়ী হয়েছিল বলে মার্কিন গণমাধ্যমে বলা হচ্ছে।

ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জি-টোয়েন্টি সম্মেলনে নৈশভোজের মাঝপথে নিজের আসন ছেড়ে উঠে যান ট্রাম্প। এরপর পুতিনের পাশের একটি খালি চেয়ারে বসে কিছুক্ষণ কথাবার্তা বলেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট সে সময় একাই ছিলেন। তবে, পুতিনের সঙ্গে ছিল তার দোভাষী।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের জানুয়ারিতে মার্কিন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেন ট্রাম্প। নির্বাচনী প্রচার চলাকালে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছিলেন তিনি। পুতিনও ট্রাম্পের প্রশংসা করেন। দুজনের সম্পর্ক নিয়ে মার্কিন রাজনীতিতে নানা সন্দেহ আছে।

যুক্তরাষ্ট্রে গত বছর অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ট্রাম্পের প্রচার দলের সঙ্গে রাশিয়ার সংযোগের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মার্কিন ও রুশ প্রেসিডেন্টের সম্পর্ককে নজরদারিতে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্রের সংশ্লিষ্ট মহল, মিত্র ও গণমাধ্যমগুলো। দেশটির গোয়েন্দা সংস্থাগুলো মনে করছে, গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পকে জেতাতে সহায়তা করেছে রাশিয়া। এই অভিযোগের সত্যতা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মার্কিন নির্বাচনে রুশ আঁতাতের অভিযোগ নিয়ে চরম অস্বস্তিতে আছেন ট্রাম্প।

মন্তব্য করুন

comments