X

প্রিন্সেস ডায়ানা থেকে কেট মিডলটন, রাজপরিবারের গয়না কথা

শাশুড়ির এনগেজমেন্ট রিংটা পেয়ে কয়েকমুহূর্ত অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়েছিলেন তিনি আংটিটির দিকে। চোখে বিস্ময়। মুখে কোনও কথা সরছিল না। এদিকে প্রিন্স উইলিয়াম তো ততক্ষণে অস্থির। শেষ পর্যন্ত বিয়ের প্রস্তাবে সম্মতি জানালেন কেট মিডলটন।

বর্তমান ডাচেস অফ কেমব্রিজ কেট মিডলটন শাশুড়িকে দেখেননি। কিন্তু স্বামীর কাছে তাঁর গল্প শুনেই যুবরানির চরিত্র সম্বন্ধে তিনি ওয়াকিবহাল। শাশুড়ির গয়নাগুলো কিন্তু তাঁর ভীষণ প্রিয়। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন,‘ডায়নার ব্যবহৃত গয়না পরলে ওঁর কাছাকাছি পৌঁছতে পারি। তাই সেইসব গয়না আমার কাছে অমূল্য।’

শাশুড়ির ব্যবহৃত মোট চারটি গয়না আপাতত কেটের তত্তাবধানে। নীল স্যাফায়ার বসানো এনগেজমেন্ট রিং তারই একটা। বারো ক্যারেটের স্যাফায়ার ঘিরে রয়েছে চোদ্দোটা সলিটিয়ার ডায়মন্ড। আংটিটা ব্ল্যাক গোল্ড গিয়ে গড়া। ১৯৮১ সালে প্রিন্স চার্লস স্ত্রীর জন্য বানিয়েছিলেন এই আংটি। আপাতত তা কেটের আঙুলে শোভা পায়।
আংটি ছাড়াও আছে লাভার নট টায়রা। ১৯১৪ সালে তৈরি এই মুকুট। হীরে আর মুক্ত বসানো এই মুকুট রানি এলিজাবেথ পুত্রবধূকে দিয়েছিলেন বিয়ের উপহার হিসেবে। পরবর্তী প্রজন্মে কেট বাড়ির বড় বউ হয়ে এলে ওই মুকুট চলে যায় তাঁর জিম্মায়। মুকুটটা কেটের দারুণ পছন্দ। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাঁকে এই গয়না পরতে দেখা যায়।

স্যাফায়ার নাকি লেডি ডায়ানার প্রিয় পাথর ছিল। আংটির সঙ্গে ম্যাচ করে তাই ওই একই পাথরের দুটো কানের দুল বানিয়ে দিয়েছিলেন চার্লস। উইলিয়াম ২০১০ সালে কেটকে ওই দুটো দুল উপহার দেন। তবে কানে বসানো দুল কেটের অপছন্দ বলে দুলে আংটা লাগিয়ে নেন তিনি।

আর আছে ব্রেসলেট। মুক্ত বসানো তিন দড়ির এই ব্রেসলেট ১৯৮৮ সালে নাইজেল ম্যালিন নামে এক বিখ্যাত জুয়েলারি ডিজাইনার তৈরি করেছিলেন প্রিন্সেস ডায়নার জন্য। যে কোনও কারণেই হোক না কেন, এই গয়নাটি ডায়নার বিশেষ পছন্দ হয়নি। তিনি যা পরেওছেন খুবই কম। পরবর্তীকালে এই ব্রেসলেটটিও কেটকেই দেওয়া হয়। আর কেট শাশুড়ির অন্যান্য গয়নার মতোই এটিকেও মহামূল্যবান বলে মনে করেন।

মন্তব্য করুন

comments