রোহিঙ্গা নির্যাতন সহ্য করবেনা ইরান;এরদোগানের সাথে ফোনালাপে রুহানী

89
শেয়ার

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর চলমান হত্যাকাণ্ডকে গণহত্যা বলে আখ্যা দিয়েছেন। গত সপ্তাহ থেকে আকস্মিকভাবে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমান হত্যার ঘটনা বেড়ে গেছে এবং এ পর্যন্ত অন্তত ৪০০ মুসলমানকে করা হয়েছে বলে ইরানের প্রেসটিভি খবর দিয়েছে। তবে কোনো কোনো গণমাধ্যম নিহতের সংখ্যা এক হাজারের বেশি বলে খবর দিচ্ছে।

এরদোগান শুক্রবার ইস্তাম্বুল শহরে সাংবাদিকদের কাছে বলেন, “মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে যা হচ্ছে তা গণহত্যা। সবাই এ ঘটনায় চুপ রয়েছে এবং দূর থেকে তাকিয়ে দেখছে। গণতন্ত্রের আড়ালেই এ গণহত্যা চলছে।” তিনি বলেন, বিষয়টি জাতিসংঘের আসন্ন সাধারণ বার্ষিক অধিবেশনে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হবে বলে জানিয়েছেন।

২০১২ সাল থেকে উগ্রবাদী বৌদ্ধরা রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে আসছে। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বসবাসরত রোহিঙ্গা মুসলমানদের সে দেশের নাগরিক বলে স্বীকার করে না দেশটির সরকার। শান্তিতে নোবেল বিজয়ী কথিত গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী অং সান সুচির দল ক্ষমতায় থাকার পরও এই হত্যাকাণ্ড নির্বিঘ্নে চলছে। এ পর্যন্ত অং সান সুচি মুসলমানদের হত্যাবন্ধে কোনো ব্যবস্থা নেননি।

 

এদিকে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের সঙ্গে বৃহস্পতিবার টেলিফোনে আলাপ করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর যে অমানবিক নির্যাতন চলছে সে বিষয়ে আলোচনা করেন তারা।এ সময় রোহিঙ্গা ইস্যুতে হতাশা ও উদ্বেগের কথা তুলে ধরে তিনি বলেছেন, বিশ্বের যেকোনো জায়গায় মুসলমানদের বিরুদ্ধে নির্যাতন হোক না কেন ইরান তা সহ্য করবে না।

ফোনালাপে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, ইরানের নতুন প্রশাসনের সঙ্গে তুরস্কের সহযোগিতা বাড়বে সে বিষয়ে তিনি আস্থাশীল। এরদোগানও মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর নির্যাতনে দুঃখ প্রকাশ করেন।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এবং সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানের এক যৌথ প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, মিয়ানমারে সাম্প্রতিক সেনা অভিযান শুরুর পর থেকে গেল এক সপ্তাহে উত্তর-পশ্চিম রাখাইন রাজ্যে ৪শ জন নিহত হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর বিদ্রোহীদের সাম্প্রতিক হামলা এবং এর জবাবে জোরালো এক সেনা-অভিযানে এইসব প্রাণহানি হয়েছে।

মিয়ানমারের ডি-ফ্যাক্টো সরকার নিহত ৪শ জনের মধ্যে ৩৭০ জনকে সন্ত্রাসী বলে উল্লেখ করেছে। তবে রোহিঙ্গা-অধ্যুষিত রাখাইনে নিরাপরাধ বেসামরিকদেরকে হত্যা করা হচ্ছে উল্লেখ করে তা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে বিশ্বসম্প্রদায়।খবর সূত্রঃ পার্স টুডে

মন্তব্য করুন

comments