ট্রাম্পকে জবাব কিমের,আবারো ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ উত্তর কোরিয়ার

42
শেয়ার

একাধিক ক্ষেপনাস্ত্র ছুড়ে আমেরিকা ও দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়ার জবাব দিল কিম জং উন-এর উত্তর কোরিয়া।

কোরীয় উপসাগরে ব্যাপক যৌথ সামরিক মহড়া চালাচ্ছে আমেরিকা ও উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনী। এই মহড়ায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া। সামরিক মহড়ার আড়ালে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে ওয়াশিংটন ও সিওল, অভিযোগ জানিয়েছে পিয়ংইয়ং। ইতিমধ্যে আমেরিকার বিরুদ্ধে পরমাণু হামলার হুমকি দিয়েছেন কমিউনিস্ট দেশটির যুদ্ধবাজ রাষ্ট্রনেতা কিম।

ইউএস প্যাসিফিক কমান্ড এদিন জানিয়েছে, তিনটি স্বল্পপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করে কিমের সেনাবাহিনী। রাডারে ওই মিসাইলগুলির গতিবিধি ধরা পড়েছে। প্রায় ২০ মিনিট অন্তর মিসাইলগুলি ছোড়া হয়। মার্কিন সেনার এক শীর্ষ আধিকারিক জানিয়েছেন, তিনটি মিসাইলই লক্ষ্যে আঘাত হানতে ব্যর্থ হয়েছে। উৎক্ষেপণের কিছুক্ষণ পরেই মাঝ আকাশে দু’টি মিসাইলে বিস্ফোরণ ঘটে। তৃতীয়টি লঞ্চপ্যাডের সামনেই ভেঙে পড়ে।

দক্ষিণ কোরিয়ার সেনা সূত্রে খবর, কংওয়ান প্রদেশের সেনা ঘাঁটি থেকে মিসাইলগুলি ছুড়েছে কিমের সেনা। প্রায় ২৫০ কিমি ওড়ার পর সমুদ্রের উপর ভেঙে পড়ে দু’টি ক্ষেপণাস্ত্র। ক্ষেপণাস্ত্রগুলি ৩০০ এমএমের রকেট হতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। মার্কিন প্যাসিফিক কমান্ড জানিয়েছে, আমেরিকার মূল ভূখণ্ড বা গুয়ামে হামলা চালানোর মতো ক্ষমতা নেই মিসাইলগুলির। উল্লেখ্য, গুয়ামে মিসাইল হামলা চালানোর হুমকি দিয়েছিলেন খোদ কিম। প্রত্যুত্তরে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছিলেন, হামলা হলে উত্তর কোরিয়াকে ছারখার করে দিতে প্রস্তুত সেনা। তারপরই পিয়ংইয়ংকে চাপ দেয় চিন। উত্তর কোরিয়ার উপর বাণিজ্যিক নিষেধাজ্ঞা জারি করে বেইজিং। ফলে অনেকটাই সুর নরম করে পিছিয়ে যান কিম। যাই হোক না কেন, ফের কোরীয় উপসাগরে পরিস্থিতি যে অশান্ত হতে চলেছে তা স্পষ্ট।

মন্তব্য করুন

comments