তবে কি পুতিনই শীর্ষ ধনী!

42
শেয়ার
ছবিঃ সংগৃহিত

বিশ্ববিখ্যাত ফরচুন ম্যাগাজিন তাদের এক প্রতিবেদনে দাবি করেছে, সম্ভবতঃ পুতিনই বিশ্বের সেরা ধনী। পশ্চিমা বিশ্বের অনেক সংবাদমাধ্যমেই এই বিষয় নিয়ে নানান জল্পনা-কল্পনা চলছে।

সম্প্রতি মাইক্রোসফটের সহপ্রতিষ্ঠাতা বিলগেটসকে টপকে ক্ষণিকের জন্য শীর্ষ ধনী বনে গিয়ে আলোচনায় আসেন আমাজনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জেফ বেজোস। মার্কিন ব্যবসায়ী বিল ব্রাওডারের ধারণা, পুতিনের ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণ ২০ হাজার কোটি ডলারের বেশি। এদিকে মার্কিন এই দুই ধনকুবেরের প্রত্যেকের সম্পদের পরিমাণ কমবেশি নয় হাজার কোটি ডলার।

সম্প্রতি সিএনএনের এক অনুষ্ঠানে ব্রাউডারকে পুতিনের আনুমানিক সম্পদ কত জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় তা ২০০ বিলিয়ন ডলার হবে।’

ব্রাওডারের সাক্ষ্য অনুযায়ী, পুতিন রাজনৈতিক ক্ষমতা ব্যবহার করে বিনিয়োগকারীদের কাছ বিপুল পরিমাণ অংশীদারত্ব নিয়ে নেন। তাঁর মতে, পুতিনের সম্পদের পরিমাণ বেজোস ও গেটসের মোট সম্পদের চেয়ে বেশি।

পশ্চিমা বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম নানান সময়ে বিভিন্ন অসমর্থিত এবং কম বিশ্বাসযোগ্য সূত্র হিসেবে ব্যবহার করে জনাইয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনই পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি।

রাশিয়ার তেল কোম্পানী সারগুনেফটেগাজ এর ৩৭ শতাংশ শেয়ার নিয়ন্ত্রণ করেন পুতিন। জ্বালানি খাতের আরেক শীর্ষ কোম্পানী গ্যাজপ্রম এ পুতিনের রয়েছে সাড়ে চার শতাংশ শেয়ার। এছাড়া গুনভর কোম্পানীতেও পুতিনের শেয়ার আছে। কিন্তু এসব সম্পদের কোনোটিই সরাসরি পুতিনের নামে না থাকায় বা প্রকাশিত না হওয়ায় ফোর্বস কখনো ধনীদের তালিকা তৈরির সময় তাকে বিবেচনায় নেয় না।

পুতিনের ব্যক্তিগত সম্পত্তির মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হয় তার কৃষ্ণসাগরের পাড়ের বিশাল একটি প্রাসাদোপম বাড়ি। অনেকের মতে এই বাড়ির দাম এক বিলিয়ন ডলার।

যদিও কোনো নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে ভ্লাদিমির পুতিনের সম্পদের পরিমাণ সম্পর্কেও জানা যায়নি। তবে ক্রেমলিনের মধ্যম সারির একজন সাবেক উপদেষ্টা স্তানিস্লাভ বেলকোভস্কির মতে, পুতিনের সম্পদের পরিমাণ কমপক্ষে ৪০ বিলিয়ন ডলার।

তবে যেসব সম্পদের মালিকানা পুতিনের বলে মিডিয়াতে এসেছে তার কোনোটিরই বাস্তবে কোনো শক্ত প্রমাণ নেই। পুতিন কখনো তার ব্যক্তিগত সম্পদের বিষয়ে তথ্য প্রকাশ করেন না।

মন্তব্য করুন

comments