ইফতারে অতিরিক্ত খাওয়া মোটেই উচিৎ নয়, জেনে নিন প্রতিকার

56
শেয়ার

সারাদিন রোজা থাকার ফলে মনে হয় ইফতার করতে বসলে বোধ হয় সব খেয়ে ফেলা যাবে। আর তাই ইফতারে রাজ্যের ক্ষুধা দমনের জন্য অনেকে গোগ্রাসে খেতে থাকেন। ফলস্বরূপ ইফতারের পরে নড়াচড়াই মুশকিল হয়ে দাঁড়ায়। প্রবল অস্বস্তিতে বাকি সময়টা কাটে যতক্ষণ না পর্যন্ত খাবার হজম হয়। যাদের হজম প্রক্রিয়া ভালো তারা দ্রুতই রেহাই পেলেও হজম প্রক্রিয়া ধীরগতির মানুষদের যেন আর সময় যেতেই চায় না! এই সমস্যা থেকে উদ্ধারের উপায় জানুন।

প্রথমত ইফতারে বেশি খাবার খাওয়াই উচিত না। কারণ সারাদিন রোজা থাকার ফলে আপনার শরীরে নিয়মিত এনজাইম নিঃসরণে একটা পরিবর্তন আসে। হঠাৎ ইফতারে অনেক খেয়ে ফেললে সেটা আপনার শরীরের জন্য হানিকর হয়তে পারে। শুধু ইফতারে নয়, সেহেরিতেও আমরা অনেক বেশি খেয়ে ফেলি। গলা পর্যন্ত খেয়ে ফেলে পরে খারাপ লাগে। অনেকে ভাবেন বোধ হয় খাবার বেশি খেলে বেশিক্ষণ পেট ভরা থাকবে। ব্যাপারটা মোটেই এমন না। খাবার যে সময় হজম হওয়ার সে সময়ই হজম হয়ে যাবে। তবে আপনি যদি বেশিক্ষণ পেট ভরা ভরা রাখতে চান তবে উচ্চ ফাইবার যুক্ত খাবার খান। যেমন- ওটস,কাঁঠাল ইত্যাদি।

এতো গেলো কেমন খাওয়া উচিত না আর কেমন খাওয়া উচিত তা নিয়ে কথা। কিন্তু বেশি যদি খেয়েই ফেলেন তখন কি করবেন?

কফিঃ চা-কফি খেতে পাবেন। স্বস্তি পাবেন। তবে রোজার মধ্যে বেশি চা কফি না খাওয়াই ভালো। কারণ এগুলো ডাই ইউরেটিক হিসেবে কাজ করে। শরীর থেকে পানি বের করে শরীরে দ্রুত পানি স্বল্পতা তৈরি করে। তাই চা-কফি খেলে বেশি করে পানি খেয়ে নিন।

পুদিনাঃ পুদিনার চা খেতে পারেন বা পুদিনা-লেবুর এক গ্লাস ফ্রেশ শরবত। কারণ পুদিনা দ্রুত আপনার হজমে সাহায্য করবে।

ব্যায়ামঃ হালকা ব্যায়াম করুন। যেমন হাঁটাহাঁটি করুন কিছুক্ষণ। অন্তত ৩০ মিনিটের হাঁটাহাঁটি আপনার হজমকে ত্বরান্বিত করবে।

যদি কিছুতেই কিছু না হয় তখন একটা এন্টাসিড জাতীয় অ্যান্টি অ্যাসিডিটির ওষুধ খেয়ে নিন। আর পরবর্তীতে একটু সাবধানে খাওয়া-দাওয়া করবেন,তাহলেই হবে।

 

মন্তব্য করুন

comments