হ‌ুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুবার্ষিকীতে যত আয়োজন

54
শেয়ার

আজ ১৯ জুলাই কিংবদন্তী কথাসাহিত্যিক নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদ এর মৃত্যুবার্ষিকী। আজ লেখকের মৃত্যুদিবসে গাজীপুরের নুহাশ পল্লীর লিচুতলায় তার সমাধিক্ষেত্র ভরে উঠবে ফুলে ফুলে। ভক্ত ও অনুরাগীরা ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও দোয়া কামনার মাধ্যমে লেখকের প্রতি জানাবেন ভালবাসা। প্রতিটি জাতীয় পত্রিকায় তার মৃত্যুবার্ষিকী নিয়ে ছাপা হয়েছে প্রতিবেদন।

দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এ লেখককে বিশেষভাবে স্মরণ করতে নির্মিত হচ্ছে বেশ কিছু অনুষ্ঠান। বরাবরেই মতো এবারও হুমায়ূন আহমেদকে নানা আয়োজনে স্মরণ করছে চ্যানেল আই। তাঁর প্রয়াণ দিবসে প্রচার হবে ভিন্নধর্মী অনুষ্ঠানমালা। এ উপলক্ষে চ্যানেল আই-এর অনুষ্ঠান আয়োজনে দিনব্যাপী প্রচার হবে গান, কথোপকথন, বিতর্ক অনুষ্ঠান, হুমায়ূন আহমেদের গল্পে চলচ্চিত্র ‘কৃষ্ণপক্ষ’, তারই গল্পের ছায়া অবলম্বনে নির্মিত বিশেষ টেলিফিল্ম ইত্যাদি।

লেখকের প্রয়াণবার্ষিকীতে টিভি চ্যানেলগুলো নাটকসহ নানা আয়োজনে জানাবে ভালবাসা ও শ্রদ্ধা। দুপুর ২.৪০ মিনিটে দেখানো হবে হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস অবলম্বনে মেহের আফরোজ শাওনের পরিচালিত চলচ্চিত্র ‘কৃষ্ণপক্ষ’।

কৃষ্ণপক্ষ

রাত ৭টা ৫০ মিনিটে প্রচার হবে হুমায়ূন আহমেদের গল্পের ছায়া অবলম্বনে টেলিফিল্ম ‘রূপার জন্য ভালোবাসা’। রাজু আলীমের পরিচালনায় এ টেলিফিল্মে ‘হিমু’ চরিত্রে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী, ঈশানা প্রমুখ। ‘রূপার জন্য ভালোবাসা’ টেলিছবিতে অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন, শহিদুল আলম সাচ্চু, চঞ্চল চৌধুরী, জয়শ্রী কর, কাজী উজ্জ্বলসহ প্রমুখ অভিনয় শিল্পী।

এছাড়া হুমায়ূনের জন্মস্থান নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার কুতুবপুর গ্রামে তার প্রতিষ্ঠিত শহীদ স্মৃতি বিদ্যাপীঠের উদ্যোগে নেয়া হয়েছে নানা কর্মসূচী। এ সবের মধ্যে রয়েছে লেখকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, শোক শোভাযাত্রা, মিলাদ মাহফিল ও এলাকার চক্ষু রোগীদের মধ্যে বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদান।

আজ বুধবার বাংলা সাহিত্যের অন্যতম এই জনপ্রিয় লেখক, নাট্যকার ও চলচ্চিত্রকারের পঞ্চম প্রয়াণবার্ষিকী। ২০১২ সালে ১৯ জুলাই বর্ষার রাতে যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাড়ি জমান অদেখার ভুবনে। পাঠক, ভক্ত, পরিবার-পরিজন ও শুভানুধ্যায়ীদের অশ্রুধারায় সিক্ত করে বিদায় জানান প্রিয় পৃথিবীকে। বৃষ্টি ও জ্যোৎস্নাপ্রিয় এই সাহিত্যস্রষ্টা নিজ হাতে গড়া নন্দনকানন নুহাশ পল্লীর লিচুতলার ছায়ায় শায়িত হন চিরনিদ্রায়।

মন্তব্য করুন

comments