“ওরা কোরমা পোলাও চায় না, বাচার জন্য দুমুঠো ভাত আর একটি কাপড় চায়”

66
শেয়ার

ফটিকছড়ির রোসাংগিরি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এস. এম. শোয়েব আল সালেহীন। সাম্প্রতিক কালের ভয়াবহ বন্যায় যিনি এক বুক পানিতে নেমে পাশে দাঁড়িয়েছিলেন বন্যা দুর্গতদের। তাদের ত্রান সামগ্রী বিতরণ করেছেন, সামর্থ্যবানদের কাছে সাহায্য প্রার্থনা করেছেন, এবং সারাদিন পানিতে থাকার কারণে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন।

বন্যায় তার এলাকা রোসাংগিরি যখন ডুবন্ত, তখন তিনি আর বসে থাকতে না পেরে নিজেই নেমে পড়েন এক বুক পানির মধ্যে, যতটুকু সম্ভব পাশে দাঁড়িয়ে ত্রাণ দিয়ে সহযোগীতা করেন এলাকাবাসীর।এলাকাবাসী তার এহেন কর্মকান্ডে যারপরনাই মুগ্ধ হন, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তার প্রতি। অনেকেই তখন বলেন “ছেলে বাবার মতো হয়েছে”

উল্লেখ্য রোসাংগিরির বর্তমান চেয়ারম্যান শোয়েব আল সালেহীনের বাবা এস. এম ফারুক দীর্ঘদিন ধরে একই এলাকার চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি ও এলাকার উন্নয়নের জন্য যথেষ্ট কাজ করেন যার ফলে এলাকাবাসী তার মৃত্যুর পরে তার নামে একটি সড়কের নামককরণ করে যা বর্তমানে এস. এম ফারুক সড়ক নামে পরিচিত।

শোয়েব আল সালেহিনের দুর্গতের সাহায্যের ছবি ফেসবুক এবং অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সকলেই তার এমনভাবে দুর্গতদের পাশে দাঁড়ানোয় প্রশংসা করেন এবং সাহায্যের জন্য অনেকেই হাত বাড়াতে থাকেন।তখন তিনি সাহায্যের জন্য সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহবান জানান। তিনি বলেন “ওরা কোরমা পোলাও চায় না, বাচার জন্য দুমুঠো ভাত আর একটি কাপড় চায়, আপনাদের যাকাত ফান্ড ও মিসকিন ফান্ড থেকে হলেও সাহায্য করুন দুর্গতদের”

তার এমন আবেদনে সাড়া না দিয়ে পারেননি সমাজের বিত্তবানরা। একে একে সাহায্যের হাত বাড়াতে থাকেন সবাই।সেই টাকা আর ত্রান নিয়ে তিনি বিলি করেন বন্যা দুর্গতদের।

তার উদ্যোগে বিত্তবানদের সহায়তায় প্রায় ৮০০ জন বন্যাদুর্গত পরিবারদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেন তিনি। সামর্থ্যবান ব্যক্তিদের সহযোগিতায় প্রায় ৪ লক্ষ টাকার ত্রান বিতরন সম্পন্ন করেন তিনি। যারা শ্রম দিয়ে,অর্থ দিয়ে,সময় দিয়ে সহাযোগিতা করেছেন এবং বিভিন্ন ভাবে সাহস ও উৎসাহ জুগিয়েছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।

এলাকাবাসীর মুখে একটু হাসি ফোটাতে পেরে তার মুখেও হাসি ফিরে আসে।এমন উদ্যোগ গ্রহণ করে সকল চেয়ারম্যানদের কাছে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন তিনি।

ত্রান কর্মসূচি সম্পন্ন করার পরে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি

মন্তব্য করুন

comments