নজিরবিহীন পানিবন্দিতে চট্টগ্রাম নগরী

69
শেয়ার

শনিবার রাত থেকে রোববার পর্যন্ত ১২ ঘণ্টায় ৮৭.৭ মিলিমিটার বৃষ্টিতে এবং সাথে জোয়ারের কারণে ডুবে গেছে দেশের ভোগ্যপণ্যের বৃহত্তম পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জ, চাক্তাই, আছাদগঞ্জসহ ষোলশহর দুই নম্বর গেট, প্রবর্তক, আগ্রাবাদ এক্সেস রোড, সিডিএ আবাসিক, গোসাইলডাঙ্গা, বেপারিপাড়া, শান্তিবাগ আবাসিক এলাকা, হালিশহর হাউজিং সোসাইটি, বাকলিয়া, খাতুনগঞ্জ, আসাদগঞ্জ, চাক্তাই, চান্দগাঁও, মোহরা, কাপ্তাই রাস্তার মাথাসহ চট্টগ্রাম নগরীর বিস্তীর্ণ এলাকা, প্লাবিত হয়েছে নতুন নতুন এলাকা।

নগরীর চাকতাই খালের পার্শ্ববর্তী চাকতাই-খাতুনগঞ্জ এলাকা, মহেশখালের পাশ্ববর্তী আগ্রাবাদ-হালিশহর এলাকা এবং বামন শাহী খালের পার্শ্ববর্তী মোহরা- চান্দগাঁও এলাকায় পানির কারণে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে।

জলাবদ্ধতায় দুর্ভোগে পড়েছেন এসব এলাকার হাজারো অফিসগামী মানুষ ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা। খাতুনগঞ্জ, চাক্তাই এবং আসাদগঞ্জের প্রায় ছয় হাজার দোকান এবং গুদাম পানিতে ডুবে গেছে বলে জানা গেছে।এসব দোকানে এবং গুদামে পানি ঢুকে যাওয়ায় অনেক মালামাল নষ্ট হয়ে গেছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে জানা যায়, সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাব আজ (রোববার) সকাল আটটা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় ময়মনসিংহ, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে। ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির কারণে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের পাহাড়ি এলাকার কোথাও কোথাও ভূমিধসের আশঙ্কাও রয়েছে।

নগরীর কয়েকজন জনপ্রতিনিধি এবং বাসিন্দারা বলছেন, এই পানি নজিরবিহীন। চলতি বর্ষায় নগরীর নীচু এলাকা জলমগ্ন হওয়া নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হলেও আজকের (রোববার) মতো এত বেশি পানি তারা সাম্প্রতিক সময়ে দেখেননি।

ভারী বৃষ্টির সঙ্গে জোয়ারের কারণে রোববার সকাল থেকে অনেক এলাকায় পানি উঠেছে।

নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ঘরের ভিতরে হাঁটুপানিতে ডুবে গেছে ফ্রিজসহ অন্যান্য আসবাবপত্র। সকাল ছয়টা থেকে জোয়ারে পানি আসাতে অবস্থা আরো বেগতিক হয়ে দাঁড়িয়েছে এসব এলাকার বাসিন্দাদের।

জোয়ারের পানি কমে যাওয়ার পর আবার সড়কে যান চলাচল শুরু হলেও মানুষকে নজিরবিহীন দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের হিসাব অনুযায়ী বর্ষা মওসুমে নগরীর ছয়টি ওয়ার্ডের প্রায় দশ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় জোয়ারের পানি উঠে। এতে দুর্ভোগে পড়তে হয় প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষকে।

তবে, ভুক্তভোগীরা বলছেন, আজকের পরিস্থিতি সিটি করপোরেশনের এই ধারণাকেও ছাড়িয়ে গেছে।

মন্তব্য করুন

comments