খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের পাইকারি বাজারে জেলা প্রশাসনের অভিযান

26

বন্দরে খালাস হয়েছে মিসর ও চীন থেকে আসা প্রায় ৪শ’ মেট্রিক টন পেঁয়াজ

ভারতের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের ঘোষণায় অস্থির হয়ে উঠা পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে দেশের অন্যতম পাইকারী বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান শুরু হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে বাজার মনিটরিং অভিযান পরিচালিত হয়েছে।

ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করলেও বর্তমানে যে পেঁয়াজ বাজারে রয়েছে তা আগের মূল্যে কেনা। কাজেই দাম বাড়ানোর কোনো যৌক্তিক কারণ নেই উল্লেখ করে ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম জানান, নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটি যাতে যৌক্তিক মূল্যে ভোক্তাদের হাতে পৌঁছে সেজন্যই অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

এদিকে, মিসর ও চীন থেকে আমদানি করা ১৩ কন্টেইনার পেঁয়াজ এরই মধ্যে চট্টগ্রাম বন্দরে খালাস হয়েছে। এসব কন্টেইনারে প্রায় ৪শ’ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। আজ সকালে আমদানি করা এসব পেঁয়াজের একটি অংশ খাতুনগঞ্জে ঢুকেছে বলে জানা গেছে।

মিয়ানমার থেকেও এরই মধ্যে আটটি ট্রলারযোগে ৬৫০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ টেকনাফ দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে বলে আমদানি সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। সব মিলিয়ে পেঁয়াজের আকাশচুম্বী দাম ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে আসবে বলে সংশ্লিষ্টদের আশা।

গত রোববার ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের ঘোষণা দেয়ার পর বিকেল থেকে দেশের প্রধান পাইকারী বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের পাইকাররা অনেকটা পেঁয়াজ বিক্রি বন্ধ করে দেন। কিছু কিছু পাইকার বিক্রি করলেও তা ছিল অত্যধিক বেশি দামে। রোববার বিকেল নাগাদ পাইকারীতেই ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয় পেঁয়াজ। আর খুচরা দোকানে তা বিক্রি হচ্ছিল ১০০ টাকা কেজি দরে। অথচ রোববার বেলা ৩টার আগ পর্যন্ত খাতুনগঞ্জের পাইকারী বাজারে প্রতিকেজি পেঁয়াজ ৬০ টাকা দরে বিক্রি হয়।

গতকাল সোমবার সকাল না হতেই খাতুনগঞ্জের পাইকারী বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম হাকা হচ্ছিল ১০০ টাকা। যদিও ৯০ হতে ১০০ টাকা কেজি দরে খুচরা দোকানীরা পেঁয়াজ ক্রয় করেন। তাছাড়া অধিকাংশ খুচরা দোকানী আগের মজুদ বিক্রি হওয়ার পর গতকাল নতুন করে পেঁয়াজ বিক্রির জন্য রাখেননি। ফলে খাতুনগঞ্জের পাইকারী বাজার গতকাল অনেকটা স্থবির হয়ে পড়ে।

মন্তব্য করুন

comments