X

নগরীতে ‘মুরগি’ টার্গেট করা আট ছিনতাইকারি গ্রেফতার

গতকাল (২ অক্টোবর ) মঙ্গলবার নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ছিনতাই চক্রের আট সদস্যকে গ্রেফতার করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ।

নগরীর সিআরবি, ডিসি হিলসহ বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ঘুরে বেড়াত তারা। ঘুরে ফিরে দামি মোবাইল সেটের মালিকদের টার্গেট করা হতো। টার্গেটকে তাদের ভাষায় ডাকা হয় ‘মুরগি’। মুরগী পেলেই বিভিন্ন কায়দায় ছিনিয়ে নেয় দামি মোবাইল ও মূল্যবান জিনিসপত্র। এভাবেই দীর্ঘদিন ধরে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ছিনতাই করে আসছিল এ চক্রটি।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- মাহমুদুর রহমান মাহিম (১৮), সাজ্জাদ হোসেন হৃদয় (১৮), মেহেদী হাসান রবিন (১৯), আহাদুল ইসলাম রায়হান (২০), মোঃ ইউসুফ (২০), গোলাম হোসেন (১৮), ইয়ামিন হোসেন (১৯) ও হাবিবুর রহমান হৃদয় (২০)। এদের মধ্যে মেহেদি হাসান রবিন, গোলাম হোসেন ও ইয়ামিন উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।

কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান , ‘এ চক্রের সদস্যরা দীর্ঘদিন করে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ছিনতাই করে আসছে। তারা বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে আসা দর্শনার্থীদের টাগের্ট করে মোবাইল ও মূল্যবান জিনিসপত্র ছিনিয়ে নিত। গত সোমবার নগরীর সিআরবি এলাকায় তেমনই একটি ছিনতাইয়ের ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে গিয়ে পুরো দলটির বিভিন্ন তথ্য বেরিয়ে আসে। তার ভিত্তিতে মঙ্গলবার অভিযান চালিয়ে এ চক্রের আট সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। এ চক্রের সদস্যরা বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে দুই শতাধিক ছিনতাই করেছে। গ্রেফতারকৃতরা জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে- সোমবার তাদের চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিনতাই করতে যাবার পরিকল্পনা ছিল।’

ওসি মোহাম্মদ মহসিন বলেন, ‘এটি কিছু কিশোর ও যুবকদের সংঘবদ্ধ চক্র। তাদের কেউ কলেজ পড়ুয়া আবার কেউ দোকানের কর্মচারী। আচার-আচরণ, বেশভূষায় এদের ভালো পরিবারের ছেলে বলে মনে হলেও সবাই ভয়ঙ্কর ছিনতাইকারী।’

ওসি বলেন, সোমবার দুপুরে সিটি কলেজের সম্মান প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী আরাফাতুর রহমান শামীম তার দুই বন্ধুর সঙ্গে সিআরবি এলাকায় বেড়াতে আসেন। কিশোর ছিনতাইকারীরা তাদের ছোরার ভয় দেখিয়ে একটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। শামীম পরে তার বন্ধুদের নিয়ে এক ছিনতাইকারীকে কৌশলে ঘটনাস্থলের কাছে কদমতলী ফলমন্ডি এলাকা থেকে আটক করে।

এরপর সিআরবি এলাকায় অভিযান চালিয়ে ওই ছিনতাইকারী দলের বাকি সদস্যদের গ্রেফতার করা হয় জানিয়ে ওসি বলেন, তাদের কাছ থেকে ছিনতাই হওয়া মোবাইল ফোনটি এবং একটি ছোরা উদ্ধার করা হয়।

জানা যায়, এ ছিনতাইকারী চক্রটি নগরীর সিআরবি, হল ২৪, কাজীর দেউড়ি ও ডিসি হিল এলাকায় দিনের বেলায় স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের ‘টার্গেট’ করে। শিক্ষার্থীদের হাতে দামি মোবাইল দেখলে ফাঁদ পাতে ওরা। টার্গেটের নাম দেয়া হয় ‘মুরগি’। টার্গেটের পিছু নেয় তিন সদস্য। বাকিরা আশেপাশেই অবস্থান নেয়। সুবিধাজনক জায়গায় গিয়ে চক্রের একজন সদস্য টার্গেটের কাছে গিয়ে বলে ‘তুমি মোবাইল দিয়ে আমার বড় ভাই অথবা বোনের ছবি তুলেছ, মোবাইলটা দাও’ অথবা তুমি কলেজ ফাঁকি দিয়ে এখানে কি করছ। আমি তোমার বাবাকে চিনি ফোন দাও তোমার বাবার সাথে কথা বলি বলেই দ্রুত মোবাইলটি ছিনিয়ে নেয়। পাশে থাকা দুইজন টার্গেটকে ধমক দেয় এবং মারধরের চেষ্টা ও ভয়ভীতি দেখায়। ঘটনার শিকার শিক্ষার্থী চিৎকার করে লোকজন ডাকার চেষ্টা করলে দলের অন্যরা তাকে ঘিরে ধরে যাতে মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়া ছিনাতাইকারী পালিয়ে যেতে পারে। এর আগে নগরীর চকবাজার, গণি বেকারী, নন্দনকানন, আন্দরকিল্লাসহ বিভিন্ন এলাকায় এমন ছিনতাইকারী চক্রের কবলে পড়েছে অসংখ্য শিক্ষার্থী। বিশেষ করে দিনের বেলায় পার্কগুলোতে এ চক্রের সদস্যরা দলবেঁধে ঘুরে বেড়ায়। আর সুযোগ বুঝে সেখানে বেড়াতে যাওয়া শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মোবাইল ছিনিয়ে নেয় তারা।

মন্তব্য করুন

comments