X

চট্টগ্রামে যাত্রা শুরু করলো ‘উবার’

‘পাঠাও’ এর পর চট্টগ্রাম শহরে আজ থেকে যাত্রা শুরু করলো বিশ্বের সর্ববৃহৎ অন-ডিম্যান্ড রাইডশেয়ারিং কোম্পানি ‘উবার’ তাদের উবার এক্স, উবার হায়ার এবং উবার মটো সার্ভিস নিয়ে। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের দ্বিতীয় শহর হিসেবে উবারের সার্ভিস পেতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম।

উবারের রিজিওনাল জেনারেল ম্যানেজার প্রোভজোৎ সিং বলেন, ‘ঢাকায় যাত্রা শুরু করার পর থেকেই যাত্রী এবং চালকরা আমাদের সাদরে গ্রহণ করে নিয়েছেন। চট্টগ্রামবাসীদের যাতায়াত ব্যবস্থা স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ করা এবং চালকদের উপার্জনের সুযোগ করে দিতে পেরে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত।’

উবারের গাড়ি ব্যবহার করেন এ রকম কয়েকজন ব্যক্তি বলেছেন, ঢাকার পাশাপাশি চট্টগ্রামেও উবারের কার্যক্রম সম্প্রসারিত হলে সাধারণ যাত্রীদের উপকার হবে।গাড়ির ব্যবহার নিয়ন্ত্রিত হবে। বিশেষ করে সিএনজি টেক্সির দৌরাত্ম্য থেকে নগরবাসী রক্ষা পাবে।

এক মহিলা ব্যাংকার জানান, প্রতিদিন কাজ শেষে বাসায় ফিরতে রাত হয়ে যায়। সিএনজি টেক্সিতে যেতে ভয় হয়। অথচ তাঁর ঢাকার কলিগেরা প্রায় একই ভাড়া দিয়ে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কারে ঘরে ফিরেন। চালক ও গাড়ির বিস্তারিত তথ্য জানা থাকে, তাই একটি নিরাপত্তা বলয়ে থাকা যায়। চট্টগ্রামে উবার এলে আমরা উপকৃত হব।

উল্লেখ, উবারের নিজস্ব কোনো গাড়ি নেই। পরের গাড়িতে যাত্রী পরিবহন করিয়ে তারা ব্যবসা করে। মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে প্রাইভেট কারের মালিক ও চালকদের সাথে যাত্রীদের সংযোগ ঘটিয়ে দেওয়া এবং নির্দিষ্ট হারে ভাড়া আদায়ের ব্যাপারটি নিশ্চিত করাই তাদের কাজ। এ প্রক্রিয়ায় গাড়িচালক ও যাত্রী দুই পক্ষকে আগে থেকে মোবাইল অ্যাপসটি রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হয়। এতে যাত্রীর পুরো পরিচয় নিবন্ধিত থাকে। চালকেরও সবকিছু থাকে নিবন্ধিত। গাড়ির ব্যাপারে পুরো তথ্য দেওয়া থাকে। ফলে উবার ব্যবহারকারীরা নিরাপত্তার দিক থেকে থাকেন সুরক্ষিত। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উবারের কার্যক্রম রয়েছে। একেক দেশে একেক হারে কমিশন পায় উবার। ঢাকায় তাদের কমিশনের হার প্রতি ট্রিপের ২৫ শতাংশ। ভাড়ার বাকি ৭৫ শতাংশ অর্থ পায় গাড়ির মালিক ও চালক। উবার বর্তমানে পঞ্চাশ টাকা বেজ ভাড়ার সাথে প্রতি কিলোমিটারে ২১ টাকা এবং অপেক্ষার সময় প্রতি মিনিটে ৩ টাকা করে ভাড়া হিসেব করে।

এক বছরের কিছু আগে থেকে ঢাকাতে যাত্রা শুরু করার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক টেক্সি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান উবার বাংলাদেশে পদার্পণ করে। শুরু থেকেই যাত্রী ও চালক দুই পক্ষের কাছে সমানভাবে সমাদৃত হয় বিশ্বনন্দিত এই সার্ভিস। গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে যাত্রীদের উন্নতমানের যাতায়াত ব্যবস্থা এবং চালকদের পর্যাপ্ত উপার্জন নিশ্চিত করে চলেছে উবার। বাংলা নববর্ষের ঠিক আগেই চট্টগ্রামে যাত্রা শুরু করার মাধ্যমে বাংলাদেশের ২য় কোনো শহরে উবার তাদের সার্ভিস চালু করল।

মন্তব্য করুন

comments