যুবলীগকর্মী হত্যায় হাজী ইকবালসহ ১৭ জন আসামি, গ্রেপ্তার ২

38
শেয়ার

চট্টগ্রাম মহানগরীর দক্ষিণ হালিশহরে যুবলীগ কর্মী মহিউদ্দিনকে (৩৫) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় আওয়ামী লীগ নেতা হাজী ইকবালকে প্রধান আসামি করে হত্যা মামলা করা হয়েছে। মহিউদ্দিনের মা নূর নেছার বেগম মঙ্গলবার সকালে নগরীর বন্দর থানায় এ হত্যা মামলা করেন।

মামলায় হাজী ইকবালের ভাই মুরাদসহ মোট ১৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বন্দর থানায় ওসি মইনুল ইসলাম।

তিনি বলেন, সোমবার দুপুরে যুবলীগ কর্মী মহিউদ্দিন হত্যার ঘটনায় নিহতের মা নুর নেছার বেগম একটি হত্যা মামলা করেছেন। মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে আওয়ামী লীগ নেতা হাজী ইকবালকে।

এ মামলায় অভিযান চালিয়ে মুছা ও তানভীর নামে দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানান ওসি মইনুল ইসলাম।

তিনি আরো জানান, মহিউদ্দিনের লাশ ময়নাতদন্তের পর মঙ্গলবার দক্ষিণ মধ্যম হালিশহরে তার বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। বিকালে মেহের আফজল স্কুলের মাঠে জানাজা শেষে নিউমুরিং এলাকায় পারিবারিক কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়।

মহিউদ্দিনের ভাই আবু ইউসুফ জানান, মেহের আফজল উচ্চ বিদ্যালয়ের পুনর্মিলনী উপলক্ষে সোমবার দুপুর ২টায় প্রধান শিক্ষকের কক্ষে বৈঠক চলাকালে মহিউদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। আওয়ামী লীগ নেতা হাজী ইকবালের নেতৃত্বে ২০-৩০ জনের একটি দল বিদ্যালয়ে মহিউদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যার পর মোটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসে করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পর হাজী ইকবাল আত্মগোপনে রয়েছে।

দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, হাজী ইকবাল একসময় বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। দলের শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ডের জন্য আট বছর আগে তাকে বহিষ্কার করা হয়। তবুও তিনি আওয়ামী লীগ নেতা হিসেবেই নিজের পরিচয় দেন। আর মহিউদ্দিন চট্টগ্রাম মহানগরীতে যুবলীগের রাজনীতিতে প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী। দক্ষিণ-মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ কাদের এবং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি হাসানের ঘনিষ্ঠজন।

বিদ্যালয় সূত্র জানায়, বছরখানেক আগে হাজী ইকবাল মেহের আফজল স্কুলের এক শিক্ষককে ছুরিকাঘাত করে। সে সময় মহিউদ্দিন ওই স্কুল শিক্ষককের পক্ষ নেয়ায় হাজী ইকবালের সঙ্গে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এরপর থেকে হাজী ইকবাল থানায় একাধিক মামলা করেও মহিউদ্দিনকে হয়রানি করে আসছিল। সেই বিরোধের জেরে মহিউদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

comments