ফটিকছড়িতে ফাঁস হওয়া প্রশ্নসহ ৭ পরীক্ষার্থী আটক

28
শেয়ার

এএসসিতে পদার্থবিজ্ঞান পরীক্ষা শুরুর আধা ঘণ্টা আগে চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার একটি কেন্দ্রের বাইরে সাত শিক্ষার্থীর কাছে ফাঁস হওয়া প্রশ্ন পাওয়া গেছে।

তাদের মোবাইল ফোনে থাকা প্রশ্নের সঙ্গে পরীক্ষার প্রশ্ন মিলে গেছে বলে ফটিকছড়ির ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল হাসনাত মো. শহীদুল হক জানিয়েছেন।

ফটিকছড়ি হেঁয়াকো বনানী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র সংলগ্ন একটি মসজিদের সামনে থেকে মঙ্গলবার সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে প্রশ্নসহ ওই সাত শিক্ষার্থীকে আটক করে পুলিশের একটি দল।

ওই সাতজন ফটিকছড়ির বাগান বাজার উচ্চ বিদ্যালয়, গজারিয়া জেবুন্নেসা পাড়া উচ্চ বিদ্যালয় এবং চিকনছড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, কেন্দ্রের বাইরে মসজিদের সামনে নয় শিক্ষার্থী এবং কেন্দ্রের ভেতরের প্রাঙ্গণ থেকে একজনকে আটক করে পুলিশ।

ওই ১০ জনের মধ্যে তিনজনের কাছ থেকে অন্যরা বই নিয়ে প্রশ্নের উত্তর খুঁজছিল। বাকি সাতজনের কাছে প্রশ্ন ছিল। তাদের কাছ থেকে তিনটি মোবাইল ফোনও জব্দ করা হয়েছে।

ফটিকছড়ি দাঁতামার ফাঁড়ির পুলিশ সদস্য আবুল কালাম বলেন, কয়েকজন শিক্ষার্থীকে পরীক্ষার আগে আগে ব্যস্ত হয়ে বই খুঁজতে দেখে তাদের সন্দেহ হয়। খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, এমসিকিউ প্রশ্নের উত্তর খোঁজার জন্য তারা বই চাইছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, “যারা বই দিয়েছে তারা প্রশ্নের বিষয়ে কিছু জানত না। বাকি সাতজনের বিষয়ে এখন সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।”

আটক করা হলেও ওই সাত শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দিতে দেওয়া হয়েছে। পরীক্ষা শুরুর পর প্রশ্ন মিলিয়ে দেখে ফাঁস হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে বলে জানান আবুল হাসনাত।

“পরীক্ষার পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা বলেছে, একটি ফেইসবুক পেইজ থেকে তারা গতরাতে প্রশ্ন পেলেও সেটা মেলেনি। সকালে দেড় হাজার টাকায় ফেইসবুক মেসেঞ্জারে প্রশ্ন পেয়েছে। কীভাবে টাকা দিয়েছে সেটা আমরা খুঁজছি।”

মন্তব্য করুন

comments