X

সাতকানিয়ায় পাষণ্ড স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রীর নির্মম মৃত্যু

গতকাল সোমবার সকালে উপজেলার চরতি ইউনিয়নের মধ্য চরতিতে পাষণ্ড স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী নিহত হয়েছেন।

পুলিশ জানায়, মধ্য চরতি নয়াপাড়ার বাসিন্দা আমির হোসেনের ছেলে আবদুল করিম পারিবারিক কলহের জের ধরে তাঁর স্ত্রী মনোয়ারা বেগমকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান। পরে তাঁর সন্তানরা ঘরে এসে মাকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে প্রতিবেশী এবং নানার বাড়িতে খবর দেয়। এরপর এলাকার লোকজন গুরুতর আহত অবস্থায় মনোয়ারা বেগমকে উদ্ধার করে প্রথমে বিজিসি ট্রাস্ট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে সেখান থেকে চন্দনাইশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেন। এর পর চমেক হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।

নিহতের ছোট বোন নাছিমা আকতার জানান, ১৫ বছর আগে তাঁর বোনের বিয়ে হয়। তাঁদের সংসারে চার সন্তান রয়েছে। বোনের স্বামী সম্প্রতি বিদেশে যাওয়ার কথা বলে তাঁদের পরিবার থেকে টাকা নিয়েছেন। এছাড়া তাঁর বোনকে দিয়ে বিভিন্ন সংস্থা থেকে ঋণ নিয়েছেন। সর্বশেষ নেওয়া ঋণের ৪০ হাজার টাকা বোনের কাছে ছিল। টাকাগুলো তাঁকে দিয়ে দিতে বলেছিলেন স্বামী।কিন্তু তার বোন বলেছিলেন ভিসা আসার পর টাকাগুলো স্বামীকে দেবে। মূলত ঋণের সেই ৪০ হাজার টাকা নেওয়ার জন্য ছুরিকাঘাত করে বোনকে হত্যা করেছে বলে জানান নাছিমা। নিহতের স্বামী আবদুল করিম ঘটনার পর থেকে পলাতক।

সাতকানিয়া থানার ওসি মো. রফিকুল হোসেন জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী মনোয়ারা বেগম নিহত হয়েছেন। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চমেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকে স্বামী আবদুল করিম পলাতক। পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

মন্তব্য করুন

comments