X

‘চট্টগ্রাম হবে দক্ষিণ এশিয়ার উন্নত বাণিজ্যিক নগরী’

ছবিঃবাংলানিউজ

দক্ষিণ এশিয়ায় উন্নত বাণিজ্যিক নগরীর উপমা হিসেবে চট্টগ্রামের নাম গৌরবের সাথে উচ্চারিত হবে বলে মন্তব্য করেছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি। এজন্য তিনি সরকারের ধারাবাহিকতা, সকলের সমর্থন ও সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

গতকাল রোববার সকালে আখতারুজ্জামান চৌধুরী ফ্লাইওভারের ২ নং গেট অংশ হতে বায়েজিদমুখী র‌্যাম নির্মাণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শনে গিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

গণপূর্ত মন্ত্রী বলেন, অর্থনৈতিক গতিশীল, বিনিয়োগবান্ধব, নান্দনিক ও স্বাচ্ছন্দ্যময় বাণিজ্যিক নগরী হিসেবে গড়ে উঠবে চট্টগ্রাম নগরী।

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতায় গণপূর্ত মন্ত্রণালয়েরর মাধ্যমে আবদুচ ছালামের নেতৃত্বে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ তার একটি নমুনা চট্টগ্রামবাসীর মানসপটে এঁকে দিতে সক্ষম হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে চট্টগ্রাম এখন জলমগ্নতা সমস্যায় জর্জরিত। এজন্য নাগরিক সমাজের অসচেতনতাও অনেক ক্ষেত্রে দায়ী। নাগরিক জীবনে যানজট ও জলজট থেকে সৃষ্ট অস্বস্তি দূর করে একটি স্বাচ্ছন্দ্যময় নগরী গড়ে তোলার জন্য ইতিমধ্যে ব্যাপক কর্মযজ্ঞ চলছে।

মন্ত্রী আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সঠিক পথেই এগিয়ে যাচ্ছে। তেমনি এগিয়ে যাচ্ছে চট্টগ্রামের উন্নয়ন। জননেত্রী শেখ হাসিনার অবদান, চট্টগ্রামের উন্নয়ন এখন দৃশ্যমান। যতদিন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হাতে দেশ, পথ হারাবে না বাংলাদেশ। আগামী নির্বাচনে গণরায় দিয়ে আবারো তাঁকে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দিতে হবে।

র‌্যামের কাজ পরিদর্শনের সময় মন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম।

এসময় সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম বলেন, চট্টগ্রামের এত উন্নয়ন– অগ্রগতির জন্য সৌভাগ্যক্রমে আমরা আমাদের প্রিয় রাজনৈতিক অভিভাবক ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপিকে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে পেয়েছি। আমি আমার সমস্ত উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে মাননীয় মন্ত্রীর যে অকুণ্ঠ সমর্থন, সহযোগিতা ও আন্তরিকতা চট্টগ্রামের মানুষ তা কৃতজ্ঞ চিত্তে স্মরণ করবে।
অন্যানের মধ্যে এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিডিএ বোর্ড সদস্য জসিম উদ্দিন শাহ, প্রকল্প পরিচালক মাহফুজুর রহমানসহ নির্মাণ সংস্থার কর্মকর্তা–কর্মচারীবৃন্দ।

মন্তব্য করুন

comments