X

চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা নিরসনে মেগা প্রকল্পে নানা অসংগতি

আগ্রাবাদ এক্সেস রোড

প্রস্তাবিত খাল খননের সংখ্যা ঠিক নেই, মাটি উত্তোলনের পরিমাণ দেখানো হয়েছে কম।আর প্রতিরক্ষা দেয়াল নির্মাণে ৭১ কিলোমিটারের জন্য রাখা হয়েছে বাড়তি খরচ। চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসনে একনেকে অনুমোদন পাওয়া একটি মেগা প্রকল্পে এরকম ১৮টি ত্রুটি চিহ্নিত করেছে সিটি কর্পোরেশন। সংস্থাটি বলছে, এসব বিষয় বিবেচনায় না আনলে কোন কাজেই আসবেনা এই প্রকল্প। তাদের এসব সুপারিশ নিয়ে কাল আলোচনা হতে পারে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে। বন্দরনগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকার এই প্রকল্প অনুমোদন দেয় সরকার। যা বাস্তবায়ন করবে সিডিএ। তবে বাস্তবায়নের আগে প্রকল্পটি যাচাইয়ের দায়িত্ব পায় সিটি কর্পোরেশন।

সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রকল্পে ৩৬টি খাল খননের কথা থাকলেও বাস্তবে খালের সংখ্যা হবে ৫৭টি। আর ৫০০ কিলোমিটার ড্রেন পরিস্কার ও ১০০ কিলোমিটার নতুন ড্রেন করার প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু প্রকল্পে আছে তার প্রায় অর্ধেক। এছাড়া খালে পানির ধারণক্ষমতা বাড়াতে ১৪ লাখ ২০ হাজার ঘনমিটার মাটি অপসারণ জরুরি হলেও সিডিএ’র প্রকল্পে তা সাড়ে নয়লাখ মিটার।

এরবাইরে ১৭৬ কিলোমিটার প্রতিরক্ষা দেয়াল নির্মাণে মোট প্রকল্প ব্যয়ের ৪৭ শতাংশ অর্থ খরচের জন্য রাখা হলেও কর্পোরেশন বলছে, ৭১ কিলোমিটার নির্মাণের প্রয়োজনই নেই। পাশাপাশি টাইডাল রেগুলেটর, স্লুইচগেটসহ বিভিন্ন বিষয়ে অসংগতির কথা উঠে এসেছে করপোরেশনের প্রতিবেদনে। সিটি করপোরেশনের এসব সুপারিশকে স্বাগত জানিয়েছে সিডিএ। তারা বলছেন, সব ত্রুটি সংশোধন করেই বাস্তবায়ন করা হবে প্রকল্পটি। সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে এ বছরের ডিসেম্বরে এই মেগাপ্রকল্পের কাজ শুরু করতে চায় সিডিএ। সৌজন্যেঃচ্যানেল টুয়েন্টিফোর

মন্তব্য করুন

comments