ভুয়া ডিবি পুলিশকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দিল ৮ শিক্ষার্থী

93
শেয়ার

ভুয়া ডিবি পুলিশ সেজে ট্রেনে যাত্রীদের হয়রানি করার সময় আবদুর আহাদ (২৪) নামের একজনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে উদয়ন এক্সপ্রেসে করে সিলেট থেকে চট্টগ্রামে আসা ৮ শিক্ষার্থী।

গতকাল মঙ্গলবার গভীর রাতে সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেসে তাকে আটক করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, আবদুর আহাদ নামের ওই ব্যক্তি চার পুলিশ কনস্টেবলসহ উদয়ন এক্সপ্রেসের বিভিন্ন বগিতে তল্লাশির নামে যাত্রীদের হয়রানি করতে শুরু করে। এ সময় সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী আট শিক্ষার্থী শামীমা জান্নাত আরা, মেজবাহ উদ্দিন, ওয়াফিউল হক, মো. আলাউদ্দিন সাকিব, মোস্তফা মোহাইমিনুল কাওছার, ইয়াছিন আরাফাত অনি, মো. নাছির উদ্দিন পাঠান, মো. জাবেদ ও আনিকা আহমেদকেও বিভিন্ন অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করে হয়রানি করতে থাকে। এসব শিক্ষার্থী চট্টগ্রামের বিভিন্ন কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। তারা গ্যাং ট্যুর নামের একটি প্রতিষ্ঠানের হয়ে সিলেট সফরে যাচ্ছিলেন।

শিক্ষার্থীরা জানান, ওই ভুয়া পুলিশ বিভিন্ন প্রশ্ন করার এক পর্যায়ে তাদের সন্দেহ হলে ওই ভুয়া ডিবি পুলিশকে আইডি কার্ড দেখাতে বললে তার কাছে আইডি কার্ড নেই বলে জানায়। পরে আহাদ নিজেকে সিনিয়র এসপি, একবার ডিবি পুলিশ এবং আরেকবার এসি কেবিনের অপারেটর বলে দাবি করে। এ সময় তার সঙ্গে থাকা অন্য দুই পুলিশ কনস্টেবল সিহাব উদ্দিন ও আবদুল হালিম তাকে পাশের বগিতে নিয়ে যায় এবং ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে। পরে জানা যায়, তারা প্রত্যেক বগিতেই এ ধরণের কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর ট্রেনের যাত্রীরা ওই দুই পুলিশ এবং ভুয়া ডিবিকে নিজেদের আওতায় নেয়। ট্রেনটি আখাউড়া স্টেশন এলে দুই পুলিশ সিহাব ও হালিম কৌশলে সিলেট রেলওয়ে থানার এসআই নফিল উদ্দিনের সহায়তায় ট্রেন থেকে নেমে যায়। পরে তাদের অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যায়নি। পরে ট্রেন চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে এলে আবদুল আহাদকে চট্টগ্রাম রেলওয়ে পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার নজরুল ইসলাম বলেন, সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেসে ভুয়া ডিবি পুলিশ সেজে যাত্রীদের হয়রানিকালে কিছু শিক্ষার্থী তাকে ধরে ফেলে। পরে পুলিশে সোর্পদ করে।আটক ব্যক্তির সহযোগী ছিল আরো ৪ জন বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে কর্মরত পুলিশ সদস্য। এদের মধ্যে ২ পুলিশ সদস্যকে ক্লোজড করা হয়েছে। এছাড়া ভুয়া ডিবি পুলিশ আহাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

comments