আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারের র‌্যাম্প ও লুপের কাজ শেষ হবে ডিসেম্বরে

86
শেয়ার

নগরীর মুরাদপুর থেকে লালখান বাজার পর্যন্ত আখতারুজ্জামান চৌধুরী ফ্লাইওভারে র‌্যাম্প ও লুপ নির্মাণ কাজ আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে বলে জানা গেছে।

সূত্র মতে, ফ্লাইওভার প্রকল্পে দুই নম্বর গেট মোড়ে গাড়ি ওঠানামার জন্যে দুটি লুপ নির্মাণের বিষয় মূল ডিপিপিতে ছিল। সেই হিসেবে লুপ নির্মাণ হচ্ছে। আর জিইসি মোড়ে গাড়ি চলাচলের সুবিধার্থে র‌্যাম্প নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে।

সরেজমিনে আখতারুজ্জামান চৌধুরী ফ্লাইওভারের নিচে সিডিএ এভিনিউ সড়কে গিয়ে দেখা যায়, বড় বড় গর্ত করে লুপ নির্মাণ কাজ চলছে। সড়ক দ্বীপের (আইল্যান্ড) পাশ
ঘেঁষে এসব লুপ তৈরি হচ্ছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই সিডিএ এভিনিউ এলাকার লুপ মূল সড়ক থেকে সরিয়ে সামনের গলিপথে বসানোর দাবি জানান। তাঁদের মতে, এতে সড়কের প্রশস্ততা বজায় থাকবে। ফ্লাইওভারের নিচ দিয়ে যানবাহন চলাচল সহজ হবে।

এ বিষয়ে সিডিএর নির্বাহী প্রকৌশলী ও আখতারুজ্জামান চৌধুরী ফ্লাইওভার প্রকল্পের পরিচালক (পিডি) মোহাম্মদ মাহফুজুর রহমান পূর্বকোণকে বলেন, ‘আমাদের ডিজাইনে লুপগুলো যেভাবে বসানোর কথা ছিল সেভাবেই বসানো হয়েছে। তাছাড়া ইতিমধ্যে এই এলাকার লুপের কাজ প্রায় শেষ। এখন এগুলো সরিয়ে আনার কোনো সুযোগ নেই।’

তিনি এ প্রসঙ্গে আরো বলেন,‘লুপগুলো এক ধরনের পিলার আকৃতির হবে। এগুলো ওপরে গিয়ে মিলিত হবে। নিচে মিলিত হবে না। এতে জায়গা দখল করবে না। পিলারের সাইজটাই থাকবে। এতে মূল সড়কের প্রশস্ততা কমবে না।’

আখতারুজ্জামান চৌধুরী ফ্লাইওভার প্রকল্পের পরিচালক মোহাম্মদ মাহফুজুর রহমান জানান, আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে ফ্লাইওভার সংলগ্ন দুই নম্বর গেট ও জিইসি মোড়ে লুপ ও র‌্যাম্প নির্মাণ কাজ শেষ হবে। ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত প্রকল্পের মেয়াদ রয়েছে, তার আগেই লুপ ও র‌্যাম্প নিমার্ণ কাজ শেষ হচ্ছে।

২০১০ সালের ১ জুন মুরাদপুর–ওয়াসা আখতারুজ্জামান চৌধুরী ফ্লাইওভার প্রকল্পটি একনেকে অনুমোদিত হয়। পরে প্রথম সংশোধিত প্রকল্প ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর ৫ দশমিক ২ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের ফ্লাইওভার প্রকল্পটি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে আবার (একনেক) অনুমোদন লাভ করে। এর মোট নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ৬৯৬ কোটি টাকা।

২০১৪ সালের ২৮ অক্টোবর সিডিএ ও নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স–র‌্যাঙ্কিনের মধ্যে চুক্তি সই হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ সালের ১২ নভেম্বর প্রকল্পটির ভৌত কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। ২০১৫ সালের মার্চ মাসে এর নির্মাণ কাজ শুরু হয়।

৫ দশমিক ২ কিলোমিটার দীর্ঘ ফ্লাইওভারের দৈর্ঘ্য ষোলশহর দুই নম্বর গেটে লুপ এবং জিইসি মোড়ে র‌্যাম্পসহ ৬ দশমিক ৮ কিলোমিটারে উন্নীত হবে বলে জানা গেছে।

মন্তব্য করুন

comments