ফটিকছড়িতে ক্লিনিকের ভুলে নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

51
শেয়ার

ফটিকছড়িতে নাজিরহাট কেয়ার পয়েন্ট হাসপাতালে ‘ভুল চিকিৎসায়’ নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ করেছেন মোছাম্মৎ সোমাইয়া আফরিন নামের এক মা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন তিনি।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, সোমবার (০২ অক্টোবর) সোমাইয়া আফরিনের সন্তান জন্মদানের তারিখ ছিল। ভোর চারটা ২৫ মিনিটে তিনি বেসরকারি নাজিরহাট কেয়ার পয়েন্ট হাসপাতালে যান। ডাক্তার তাকে বলেন, অক্সিজেন দিতে হবে এবং এখনি ভর্তি হতে হবে। তিনি ভর্তি হয়ে যান।

সকাল সাতটা ৫০ মিনিটে প্রসবব্যথা উঠলে তাকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তিনি সন্তান প্রসব করেন। এ সময় গর্ভে সন্তানের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান ডাক্তাররা।

সোমাইয়া আফরিন সাংবাদিকদের বলেন, কেয়ার পয়েন্ট হাসপাতালে প্রসবের আগে আমাকে জানানো হয়েছিল সব কিছু ঠিক আছে। প্রসবের পর জানায়, আমার বাচ্চা নাকি দুদিন আগে গর্ভে মারা যায়। যখন আমি তর্ক-বিতর্ক করি তখন বলে প্রসবের আট ঘণ্টা আগে মারা গেছে। তারা আরও বলে বাচ্চার নাক, নাভি, হাত নাকি কালো হয়ে গেছে। কিন্তু পরে দেখি সব ঠিক ছিল।

তিনি আরো বলেন, নয় মাস গর্ভে সন্তান ধারণ করে সন্তান কোলে নিতে পারলাম না ডাক্তার-নার্সদের অবহেলার কারণে। আমি চাই আর কোনো মায়ের কোল যেন খালি না হয়।

যোগাযোগ করলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপক কুমার রায় বলেন, ওই বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে আগেও অভিযোগ উঠেছিল। সোমাইয়া আফরিনের অভিযোগটি গুরুত্বের সঙ্গে আমরা খতিয়ে দেখছি। শিগগির আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ওই হাসপাতালে ডাক্তার-নার্স স্বল্পতা, প্যাথলজিস্ট-টেকনিশিয়ানের ঘাটতি, মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধপত্র, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ইত্যাদি দেখব।

এ ছাড়া আমাদের উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলব।

হাসপাতালটির চেয়ারম্যান শাহেদ আলীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে বাংলানিউজকে তিনি বলেন, অভিযোগ সত্য নয়। বাচ্চাটি হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার আগেই মায়ের গর্ভে মারা যায়।

মন্তব্য করুন

comments