চাক্তাইতে চালের আড়তে অভিযানে বাধা;২ জনের কারাদণ্ড

310
শেয়ার

চট্টগ্রামে চালের সবচেয়ে বড় মোকাম চাক্তাই আড়তে অভিযান চালাতে গিয়ে ব্যবসায়ীদের বাধার মুখে পড়েছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসময় সরকারি কাজে বাধা ও অতিরিক্ত মুনাফায় চাল বিক্রির অপরাধে দুজনকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে অভিযানে গেলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেটদের বাধা দেন ব্যবসায়ী নেতাসহ সংশ্লিষ্টরা। পরে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—হাজী বদিউল আলম সন্সের ব্যবস্থাপক দিদারুল আলম (৪৫) ও কর্মচারী জাহেদুল ইসলাম শাওন (২৪)। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ এর বিভিন্ন ধারায় দিদারুলের তিন মাসের কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানা এবং শাওনকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়।

জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মুরাদ আলী।এসময় নগর পুলিশের কর্মকর্তা ও কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন (ক্যাব) নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মুরাদ আলী বলেন, ‘চালের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির বিষয়টি তদারকি করতেই আমরা চাক্তাইয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে যাই। কিন্তু প্রথমেই একটি চালের আড়তে ঢুকতে গেলে ব্যবসায়ীরা আমাদের বাধা দেন। চাক্তাই চাল ব্যবসায়ী সমিতির নেতাদের উসকানিতেই আমাদের ওপর বাধার সৃষ্টি করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ব্যবসায়ীদের বাধার মধ্যেও হাজী বদিউল আলম সন্সের আড়তে অভিযান পরিচালনা করি। সেখানে কেনা দামের কয়েকগুণ বেশি দামে চাল বিক্রির প্রমাণ পাওয়া যায়। যে কারণে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার দিদারুল আলমকে আটক করা হয়। এছাড়া অভিযান পরিচালনার সময় ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী জাহেদুল ইসলাম শাওন ভ্রাম্যমাণ আদালতের ওপর বাধা প্রয়োগ করার অপরাধে তাকেও আটক করা হয়।

জেলা প্রশাসনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মহানগরের চাক্তাই এলাকায় চাল মজুতদারির বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসন, চট্টগ্রাম- এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মুরাদ আলী ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সমন্বয়ে বাজার মনিটরিং টিমের অভিযান পরিচালনা করা হয়। এই অভিযানে হাজী বদিউর রহমান অ্যান্ড সন্স কর্তৃক অতিরিক্ত মূল্যে চাল বিক্রি এবং অতিরিক্ত চাল মজুতের অভিযোগে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার মো. দিদারুল আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় কতিপয় দুষ্কৃতকারী আসামিকে ছিনিয়ে নিতে চেষ্টা করে এবং মোবাইল কোর্টের কার্যক্রমে বাধা প্রদান করে। এক পর্যায়ে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ এবং র‌্যাব-৭ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে অভিযানে শক্তি বৃদ্ধি করে।

অভিযানে আসামি মো. দিদারুল আলমকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে তিন মাসের কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড এবং মোবাইল কোর্ট কার্যক্রমে বাধা প্রদানের অভিযোগে মো. জাহিদুল ইসলাম শাওনকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, ব্যবসায়ীরা বাধা দিলেও অসাধু চাল ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

মন্তব্য করুন

comments