লোহাগাড়ায় যাত্রীবাহি বাসে গৃহবধুকে ধর্ষণ চেষ্টা

217
শেয়ার

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কস্থ উপজেলার বার আউলিয়া কলেজ গেট এলাকায় মঙ্গলবার রাতে বাসের ভেতর এক গৃহবধূকে (২৭) ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে ৩ জনকে আটক করেছে থানা পুলিশ। পরে পুলিশ ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে।এ ঘটনায় গতকাল বুধবার বাসচালকের সহকারীকে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই ঘটনায় ওই বাসের চালক জনি বড়ুয়া ও চালকের আরেক সহকারী বাবুল নাথকে মাদক সেবনের দায়ে এক বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলো সাতকানিয়া উপজেলার করইয়ানগরের মৃত হরেন্দ্র লাল বড়ুয়ার পুত্র বাসচালক জনি বড়ুয়া (২৪), একই উপজেলার দক্ষিণ ঢেমশা পূর্ব গোয়াজার পাড়ার আবদুস ছত্তারের পুত্র বাসের হেলপার মো. এহছান (২৬) ও চন্দনাইশ উপজেলার চাগাচর এলাকার অজিত নাথের পুত্র বাসের হেলপার বাবুল নাথ (২৩)।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার রাত আটটার দিকে চন্দনাইশের দোহাজারী থেকে ওই গৃহবধূ কক্সবাজারের রামু যাওয়ার উদ্দেশে একটি বাসে ওঠেন। তখন গাড়িতে যাত্রী ছিলেন ৮ থেকে ১০ জন। ২৫ কিলোমিটার যাওয়ার পর লোহাগাড়ার পদুয়া তেওয়ারি হাটে বাসের অন্য যাত্রীরা নেমে যান। এ সময় চালকের সহকারী এহসান ওই গৃহবধূকে বলেন, যাত্রী না থাকায় বাস রামু পর্যন্ত যাবে না। তাঁকে তিন কিলোমিটার দূরে পরের স্টেশন বটতলীতে নেমে যাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। সেখান থেকে রামুর গাড়ি পাওয়া যাবে বলেও তাঁকে জানানো হয়। কিন্তু বটতলীর এক কিলোমিটার আগে বাসটি চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের লোহাগাড়ার বারআউলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ এলাকায় থেমে যায়। তখন ওই গৃহবধূ গাড়ি থেকে নেমে যাওয়ার চেষ্টা করেন।

পুলিশ জানায়, চালকের সহকারী এহসান তখন গৃহবধূকে বাস থেকে নামতে বাধা দেন। তাঁকে (গৃহবধূ) টেনে বাসের পেছনের দিকের আসনে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় চালক ও অন্য সহকারী মাদক সেবন করছিলেন। গৃহবধূর চিৎকার শুনে ওই পথ দিয়ে যাওয়া টহল পুলিশ বাসে তল্লাশি চালায়।

লোহাগাড়া থানার এএসআই রুবে সরকারের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। তিনি জানান, ঘটনাস্থলে দাঁড়ানো অবস্থায় শাহ আমানত পরিবহন সার্ভিসের একটি বাস দেখতে পান। এতে তার সন্দেহ হয়। পরে তল্লাশি চালিয়ে বাসের পিছনে একটি মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা অবস্থায় মো. এহছানসহ অপর দু’জনকে আটক করেন।

আটকদের ১৩ই সেপ্টেম্বর ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হয়। আদালত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হয়ে তাদের ১ বছর করে সাজা দেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাহবুব আলম। জানা যায়, চট্টগ্রাম শহরে থেকে বাসটি কক্সবাজার যাচ্ছিল।

দণ্ডাদেশ দেওয়ার পর তিনজনকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

comments