আদালতে অমিত মুহুরীর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

220
শেয়ার

চট্টগ্রামে দিঘী থেকে ড্রামের ভেতরে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেপ্তার যুবলীগকর্মী অমিত মুহুরী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।
রবিবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম মেহনাজ রহমানের আদালতে তিনি জবানবন্দি দেন। মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (কোতোয়ালী জোন) জাহাঙ্গীর আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান, অমিত মুহুরীকে শনিবার কুমিল্লা থেকে গ্রেফতারের পর রবিবার (৩ সেপ্টেম্বর) আদালতে তোলা হয়। জবানবন্দিতে অমিত জানিয়েছেন তার স্ত্রীকে উত্ত্যক্তের কারণে ইমনকে হত্যা করা হয়েছে।

সহকারী কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, “অমিত তার জবানবন্দিতে বলেছেন, তার স্ত্রীকে প্রায়ই উত্ত্যক্ত করতেন ইমন। এ কারণেই তাকে হত্যা করা হয়েছে।
শিশির তার জবানবন্দিতে দাবি করেছিলেন, অমিত নিজে ইমনকে খুন করে। তবে অমিত বলেছে, ইমনের গলায় ছুরি চালিয়েছিল শিশির। আর সে নিজে মারধর করেছে।”

গত ১৩ অগাস্ট নগরীর কোতোয়ালি থানার এনায়েত বাজার রানীর দিঘী থেকে সিমেন্ট ঢালাই করা ড্রামের ভেতরে থেকে ইমরানুল করিম ইমন নামের এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ জানায়, ১৩ আগস্ট উদ্ধার করা ড্রামে থাকা লাশটি ইমরানুল করিম ইমন (২৫) নামে এক যুবকের। ইমন রাউজান পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা রেজাউল করিমের ছেলে।তদন্তে নেমে ইমনের বন্ধু অমিতকে পুলিশ খুঁজতে শুরু করে।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে পালিয়ে কুমিল্লায় চলে যান অমিত। সেখানে তিনি একটি মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি হন; চুল দাড়ি কেটে বেশভূষা পাল্টে ফেলেন।

অমিতের এই ছবি ছিল পুলিশের কাছে অমিতের এই ছবি ছিল পুলিশের কাছে পুলিশের কাছে থাকা ছবির সঙ্গে পুরোপুরি মেলানো না গেলেও গলার বাঁ পাশে ও ডান হাতে আঁকা উল্কির কারণে তদন্তকারীরা তাকে ঠিকই চিনে ফেলেন। শনিবার কুমিল্লার আদর মাদক নিরাময় কেন্দ্র থেকে গ্রেপ্তার হন অমিত।

রোববার জবানবন্দি শেষে আমিতকে কারাগারে পাঠিয়েছেন বিচারক।

মন্তব্য করুন

comments