দুই মাসের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার

206
শেয়ার

আবারো সাময়িকভাবে সব ধরনের যান চলাচলেরর জন্য শুক্রবার (০১ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় দুই মাসের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার। ফ্লাইওভারের দুই নম্বর গেইট অংশে একটি র‌্যাম্প ও একটি লুপ এখনও নির্মাণাধীন। এছাড়া জিইসি মোড় অংশে চারটি র‌্যাম্প নির্মাণের কাজ শুরু হয়নি।দুই মাস পর অসমাপ্ত নির্মাণ কাজ সমাপ্ত করার জন্য সেটি আবারো বন্ধ করে দেয়া হবে।

এর আগে এ বছরের ১৬ জুন ফ্লাইওভারের একটি লেইন সাময়িকভাবে খুলে দিয়েছিল চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)।রমজানের ঈদের আগে যানজট এড়াতে সব কাজ শেষ না করেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সিডিএ।অন্য লেইনটিতে কার্পেটিংয়ের কাজ বাকি ছিল। খুলে দেওয়া এক লেইনে রাতে যান চলাচল বন্ধ রাখা হচ্ছিল। এরপর গত ২৫ জুলাই থেকে ওই লেইনটিও বন্ধ করে দেওয়া হয়। কার্পেটিংসহ বাকি কাজ শেষে শুক্রবার ফ্লাইওভারটির দুটি লেনই খুলে দেওয়া হল।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম বলেন, “মূল অংশের সব নির্মাণকাজ শেষে আজ এটি খুলে দেওয়া হয়েছে। এখন থেকে ফ্লাইওভারটিতে সব ধরনের যান চলাচল করতে পারবে।”

চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে নির্মানাধীন র‌্যাম্প ও লুপের কাজ শেষে হবে বলে জানান তিনি।

জিইসি মোড়ে চারটি র‌্যাম্প নির্মাণের বিষয়ে জানতে চাইলে সিডিএ চেয়ারম্যান ছালাম বলেন, “সেগুলোর নির্মাণ কাজ এপ্রিলের মধ্যে শেষ হবে। লাইটিং করা হয়েছে। সৌন্দর্য বর্ধন করা হবে।২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত প্রকল্পটির মেয়াদ। তার আগেই এপ্রিলের মধ্যে সব কাজ শেষ করা সম্ভব হবে।”

ফ্লাইওভারটি নির্মাণ করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স-রেঙ্কিন (জেভি)।র‍্যাম্প ও লুপসহ উড়ালসড়কের মোট দৈর্ঘ্য ৬ দশমিক ৮ কিলোমিটার। এর মধ্যে মূল অংশের দৈর্ঘ্য (মুরাদপুর থেকে লালখান বাজার) ৩ দশমিক ৭ কিলোমিটার। পুরো প্রকল্পে ব্যয় হচ্ছে ৬৯৬ কোটি ৩৪ লাখ ৪৪ হাজার টাকা।

 

মন্তব্য করুন

comments