X

স্বামীকে গলাটিপে হত্যার বর্ণনা দিলেন স্ত্রী

গত ২২ আগস্ট নগরের বায়েজিদ বোস্তামী থানার শেরশাহ ঢেবারপাড় সোনালি নিবাস আবাসিক এলাকার বাসায় রহস্যজনক মৃত্যু হয় কাঠমিস্ত্রি সিদ্দিক আহমদের (৩০)। এরপর তার স্ত্রী পুলিশ ও এলাকার লোকজনকে প্রথমে বলেন গলায় শাড়ি পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে তার স্বামী। পরে বলেন, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। শিরিনের দুই কথায় পুলিশের সন্দেহ হলে বুধবার বায়েজিদ থানার বাংলাবাজার ঢেবার পাড় সোনালী আবাসিক এলাকার বাসা থেকে তাকে আটক করে। অবশেষে পুলিশের জেরারমুখে হত্যার দায় স্বীকার করে। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে বৃহস্পতিবার আদালতে পাঠালে শিরিন বেগম (৩০) স্বামীকে হত্যার কথা স্বীকার করে। চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম মেহনাজ রহমানের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন শিরিন।

নিহত সিদ্দিকের বাড়ি আনোয়ারা উপজেলার রায়পুরে। গর্মেন্টস শ্রমিক শিরিনের বাড়ি বরগুনা জেলার তালতলী উপজেলায়। শিরিন বায়েজিদ এলাকায় একটি পোশাক করাখানায় চাকরি করেন।তিনি বরগুনা জেলার তালতলীর বাসিন্দা ।

বায়েজিদ বোস্তামী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মঈন উদ্দিন বলেন, শিরিনকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে হত্যার কথা শিকার করে। সে জানায়, মঙ্গলবার রাতে সিদ্দিক বাসায় ফেরার পর দুইজনের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে সিদ্দিক শিরিনকে মারধর করে। এসময় শিরীন বক্করের গলা টিপে ধরলে সে অজ্ঞান হয়ে যায়। রাতে তার মা কে ডেকে এনে তাকে দিয়ে আবু বক্করকে হাসপাতালে পাঠায় শিরিন। এসব তথ্য ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়ে আদালতকে জানায় শিরিন।

পুলিশ কর্মকর্তা মঈন বলেন, জবানবন্দীতে শিরিন জানিয়েছেন সিদ্দিক তার দ্বিতীয় স্বামী। প্রথম স্বামীর ঘরে তার পাঁচ ও সাত বছর বয়সী দুইটি সন্তান রয়েছে। প্রথম স্বামী মারা যাওয়ায় দেড় বছর আগে সিদ্দিককে বিয়ে করে সে। সিদ্দিক তার মা-বাবার কাছে টাকা পাঠানো নিয়ে তাদের মধ্যে কলহ হতো।

মন্তব্য করুন

comments