X

নতুন আয়কর আইন প্রণয়নের আহ্বান জানালো চট্টগ্রামের ব্যাবসায়ীরা

আর্ন্তজাতিক বাণিজ্যের সঙ্গে সংগতি রেখে নতুন আয়কর আইন প্রণয়নের আহ্বান জানিয়েছেন চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীরা। গতকাল শনিবার সকালে ‘নতুন আয়কর আইন-জনপ্রত্যাশা’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় তারা এ দাবি জানান। চট্টগ্রাম নগরীর ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার মিলনায়তনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

এসময়,কাঠামোগত কোনো পরিবর্তন না করে তথ্য প্রযুক্তি ভিত্তিক বিষয়গুলো আইনটিতে রাখার আশ্বাস দেন রাজস্ব কর্মকর্তারা।

সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, আইনটি ১৯৮৪ সাল থেকে অধ্যাদেশ হিসাবে পরিচিতি হওয়াটা দুঃখজনক। প্রস্তাবিত আইনটি দ্রুততার সঙ্গে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ রেখে বাস্তবায়ন করা জরুরি। আইনটি বাংলা প্রণয়নের পাশাপাশি অর্থ পাচার প্রতিরোধের বিষয়টিও যেন গুরুত্ব দেওয়া হয় সে বিষয়েও আহবান জানান তিনি।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) আয়োজনে মতবিনিময় সভায় এনবিআরের সদস্য (আয়কর নীতি) পারভেজ ইকবাল সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ইউএসটিসি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রভাত চন্দ্র বড়ুয়া, শিক্ষাবিদ ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞানের অধ্যাপক সেলিম উদ্দিন, কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেন, আইনজীবী মো. মমিনুল ইসলাম।

সভায় সবার বোঝার জন্য নতুন আয়কর আইন বাংলায় প্রণয়নের দাবি জানিয়েছেন বক্তারা।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য ( আয়কর ও নীতি) পারভেজ ইকবালের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক ও লেখক আবুল মোমেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য ব্যারিস্টার জাহাঙ্গীর হোসেন, অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. আব্দুর রউফ, চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার শংকর রঞ্জন সাহা, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. ইকবাল বাহার, চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপমহাপুলিশ পরিদর্শক এস এম মনিরুজ্জামান, চট্টগ্রাম কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাটের কমিশনার সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. সেলিম উদ্দিন, অধ্যাপক ড. মঞ্জুর মোর্শেদ মাহমুদ, প্রফেসর সৈয়দ আহসানুল আলম, ইউএসটিসি এর উপাচার্য অধ্যাপক প্রভাত চন্দ্র বড়ুয়া, আইসিএমএবি-এর আঞ্চলিক চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া, বাংলাদেশ ব্যাংকের আঞ্চলিক নির্বাহী পরিচালক হুমায়ুন কবির এবং চট্টগ্রাম কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলম প্রমুখ।

পারভেজ ইকবাল বলেন, আপনাদের মতামত জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কাছে সবসময় গুরুত্বপূর্ণ। আইনটির কাঠামোগত পরিবর্তন হলে এর ব্যাখ্যায় জনমনে কিছুটা বিভ্রান্তি তৈরি হতে পারে। এ বিভ্রান্তি এড়ানোর লক্ষ্যে নতুন আইনটি বাংলা পাঠের পাশাপাশি কাঠামোগত কোনো পরিবর্তন না এনেই মূল একটি পাঠ রাখার কথা আমাদের বিবেচনাধীন রয়েছে। আর্থিক অস্বচ্ছতা প্রতিরোধে এবং আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের সঙ্গে সংঙ্গতি রেখেই তথ্য প্রযুক্তিভিত্তিক বিভিন্ন বিষয় প্রস্তাবিত আইনটিতে থাকবে বলে জানান তিনি। মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম কর প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের মধ্যে কর অঞ্চল-১ এর কমিশনার মাহবুব হোসেন, কর অঞ্চল-২ এর কমিশনার প্রদ্যুৎ কুমার সরকার, কর অঞ্চল-৩ এর কমিশনার মোতাহার হোসেন, কর অঞ্চল-৪ এর কমিশনার আহাম্মদ উল্যাহ এবং কর আপিল অঞ্চলের কমিশনার মো. নাজমুল করিম প্রমুখ।আলোচকরা আইনটি বাংলায় প্রণয়নের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে তা জনমুখী করার আহ্বান জানান।

চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ১৯২২ সালের আয়কর আইন ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত ছিল। সেটি এখন অধ্যাদেশ থেকে আইনে পরিণত করা সময়ের দাবি। নতুন আইনকে ব্যবসা ও বিনিয়োগবান্ধব করার পাশাপাশি নতুন আইনে দ্বৈবচয়ন ও পুন:মূল্যায়নের নামে হয়রানি বন্ধ করতে হবে বলেও মত দেন তিনি।

নগর পুলিশ কমিশনার মো.ইকবাল বাহার বলেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) চাইলে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের করদাতাদের তথ্য দিয়ে সহায়তা করবে সিএমপি। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে আয়কর বিভাগের কর্মকর্তাদের বিচরণ না থাকলেও পুলিশের রয়েছে। তাই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আয়কর দাতাদের তথ্য পুলিশ দিতে পারে। তবে এক্ষেত্রে পুলিশ আয়কর আদায়ে কাজ করবে না। কেবল যাদের আয়কর দেওয়ার সামর্থ্য আছে তাদের পরিচয় জানিয়ে দেবে। ১৬ কোটি মানুষের দেশে ১২ লাখ ই-টিআইএন অপ্রতুল।

নতুন আয়কর আইনকে ব্যবসাবান্ধব হিসেবে দেখতে চান ব্যবসায়ীরা। নতুন আইনে যাতে বিশ্বমানের করসেবা, পারস্পরিক আস্থার সম্পর্ক প্রতিফলিত হয় সেদিকে রাজস্ব বোর্ডকে বিশেষ নজর দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশিষ্টজনেরা।

মন্তব্য করুন

comments