১ সেপ্টেম্বর থেকে হকারদের জন্য নির্ধারিত স্থান ও নির্দিষ্ট সময়

ব্যবসা পরিচালনার জন্য কোন ধরনের স্থাপনা গড়ে তোলা যাবে না।

134
শেয়ার

নগরীর যানজট নিরসন ও পথচারীদের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্ধারিত স্থানে বিকেল পাঁচটা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত হকার বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লায় নগর ভবনের সম্মেলনকক্ষে সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সঙ্গে পরিবহন মালিক গ্রুপ ও ফুটপাতের হকারদের সঙ্গে পৃথক মতবিনিময় সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। স্থানগুলো এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। সরকারি ছুটি এবং বন্ধের দিন সকাল ১০টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত বসতে পারবেন তাঁরা।

হকারদের চূড়ান্ত তালিকা অনুযায়ী চসিক ফুটপাত মার্কিং করে নির্দিষ্ট হকারদের বসার সুযোগ করে দেবে। চসিক হকারদের পরিচয়পত্র দেবে। ফুটপাতে ব্যবসা পরিচালনার জন্য কোনো ধরনের স্থাপনা গড়ে তোলা যাবে না। প্লাস্টিক বিছিয়ে ফুটপাতে নির্দ্দিষ্ট স্থানে ব্যবসা পরিচালনা শেষে অবিক্রীত মালামাল নিজ নিজ উদ্যোগে সরিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

মতবিনিময় সভায় মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, হকারদের স্থায়ীভাবে পুনর্বাসনের লক্ষ্যে সিটি করপোরেশন হকার মার্কেট নির্মাণের প্রকল্প নিতে যাচ্ছে। তাঁদের স্থায়ীভাবে পুনর্বাসনের ব্যাপারে সিটি করপোরেশন আন্তরিক।

তিনি আরো বলেন, নগরবাসীর দুর্ভোগ লাঘবে গণপরিবহন আরো বাড়াতে হবে। পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা আনা ও যানজট নিরসনে নগরীতে আরও ৫টি টার্মিনাল নির্মাণের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শ্রমিক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফর আলী, মহানগর শ্রমিকলীগের সভাপতি বখতেয়ার উদ্দিন খান, কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ড. মুহম্মদ মুস্তাফিজুর রহমান, ম্যাজিস্ট্রেট জাহানারা ফেরদৌস, হকার্স লীগ সভাপতি নুর আহমদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ, চট্টগ্রাম সম্মিলিত হকার্স ফেডারেশন সভাপতি মো. মিরন হোসেন মিলন, চট্টগ্রাম ফুটপাত হকার্স সমিতির সভাপতি নুরুল আলম লেদু, সিটি হকার্স লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. হারুন, মেট্টোপলিটন হকার্স লীগের সহ সভাপতি মো. নুর মোহাম্মদ প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

comments